সুলতান নসরত শাহের পৃষ্ঠপোষকতায় গড়ে উঠেছে তাড়াশে শাহ শরীফ জিন্দানী (রা:)মাজার

প্রকাশিতঃ ১০:২৮ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ২৩ জুলাই ১৯

ফয়সাল আহমেদ, ষ্টাফ রিপোর্টার: সিরাজগঞ্জের তাড়াশে কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে রয়েছে ইসলাম প্রচারের বাহক খ্যাত হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রা:) এর মাজার শরিফ।
মাজারটি সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার নওগাঁ ইউনিয়নের নওগাঁ নামক গ্রামে অবস্থিত। আর এ মাজারকে কেন্দ্র করে তখনকার আমল থেকে প্রতি বছরের বাংলা চৈত্র মাসের প্রথম শুক্রবার ও শনিবার ওরস হয়। এতে সকল ধর্মের লক্ষ লক্ষ মানুষের সমাগম হয়। তাছাড়া প্রতি সপ্তাহের শুক্রবার দেশের বিভিন্ন অ ল থেকে মানুষ আসেন বিভিন্ন ধরনের ছিন্নি নিয়ে। এ মাজারকে কেন্দ্র করে নওগাঁ গ্রামে সাপ্তাহিক হাট গড়ে উঠেছে। এই হাটটি চলনবিলা চলের বিখ্যাত হাট।
জানা যায়, হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রাঃ) একজন ধর্ম প্রাণ বীর পুরুষ ছিলেন। তিনি ইরাকের জিন্দান শহর হতে ধর্ম প্রচারের উদ্দেশ্যে কিছু অনুচারসহ ভারত বর্ষে আসেন। ভারতের রাজধানী দিল্লী হতে ১৫২০ খিষ্টাব্দে সুলতান নাছির উদ্দিন নসরত শাহের আমলে বাংলাদেশে উপস্থিত হন এবং বিভিন্ন স্থান অতিক্রম করে চলনবিলের তাড়াশের নওগাঁ নামক স্থানে আসেন।

মাজারটি সম্পর্কে আরো জানা যায়, তখনকার মানসিংহের ভ্রাতা ভানুসিংহ নামে এক প্রভাবশালী রাজা নওগাঁ শাসন করতেন। তিনি ছিলেন দেব-দেবী ভক্ত ও মুসলমান বিদ্বেষী রাজা। রাজা ভানুসিংহের অত্যাচারে রাজ্যে জনজীবন অতিষ্ঠ ছিল। হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রাঃ) ভানু সিংহ রাজার এহেন অপকর্মের কথা শুনে আর স্থির থাকতে পারলেন না। তাই তিনি একদিন স্বদলবলে বাঘের পিঠে সওয়ার হয়ে নওগাঁ আসেন এবং সরাসরি কালী মন্দিরের সামনে উপস্থিত হন। এ খবর শুনে রাজা অগ্নিশর্মা হয়ে দরবেশ দলের সামনে স্বয়ং উপস্থিত হন এবং তাদের মারতে উদ্যত হন। এমন সময় দেখেন দরবেশ দলের সামনে বিশালাকার বাঘ এবং তার পাশেই সর্প। রাজা ভয়ে পলায়ন করেন এবং পরবর্তীতে স্বপরিবারে নৌকায় চড়ে আত্মবিসর্জন দেন। পরে হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রাঃ) খুব সহজেই নওগাঁ জয় করেন।

কথিত আছে রাজার দুই পুত্র জীবিত ছিল, পরে তারা পীর সাহেবের কাছে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন। হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রা:) নবদিক্ষিত মুসলিমদের একটা দল গঠন করেন এবং চলনবিলের অ লে ইসলামের দাওয়াত পৌঁছান। মুসলমানদের সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় তাদের নামাজ আদায়ের জন্য ১৫২৬ খ্রিঃ পৌড়াধিপতি সুলতান নসরত শাহের রাজত্বকালে এবং তার পৃষ্ঠপোষকতায় একটি মসজিদ নির্মাণ করেন। মসজিদটি এক গম্বুজ বিশিষ্ট এবং চার প্রান্তে চারটি ছোট গম্বুজ আছে। প্রধান গম্বুজের উচ্চতা ২৬ ফুট যাতে খিলানের কাজ করা। মূল মসজিদটির বাইরের দৈঘ্য ৫০ ফুট, প্রস্থ ৩৩.৫ ফুট, উচ্চতা ২২,৫০ ফুট। মসজিদ সংলগ্ন বারান্দার দৈর্ঘ্য ২৩.৫ ফুট এবং প্রস্থ্য ১১ ফুট। মসজিদের দেওয়ালের পুরুত্ব ৯.০ ফুট। আর এই মসজিদের ভেতরেই হযরত শাহ শরীফ জিন্দানী (রাঃ) এর মাজার শরীফ অবস্থিত।

নওগাঁ শাহ শরীফ জিন্দানী (রা:) মাজারের সহকারী মুতাল্লি অব: সাজের্ন্ট সাবেদ আলী জানান, বর্তমানে উপজেলা প্রসাশন ও স্থানীয়রা মিলে মাজারটি পরিচালনা করা হয়।

 

আপনার মতামত জানানঃ