ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  লাইফস্টাইল   »   সুস্থ থাকবেন করোনাকে সঙ্গী করেই!

পৃথিবীর সব প্রান্তে এখন করোনা বিদায়ের অপেক্ষায় মানুষ

সুস্থ থাকবেন করোনাকে সঙ্গী করেই!

মে ১৮, ২০২০ - ১১:২৬ অপরাহ্ণ

 লাইফস্টাইল ডেস্কঃ পৃথিবীর সব প্রান্তে এখন করোনা বিদায়ের অপেক্ষায় মানুষ, কিন্তু এই মহামারি কি সহসায় বিদায় নেবে, না এই কথা এখন আমাদের সবার মোটামুটি জানা হয়ে গেছে। বিশ্বে করোনার ভ্যাগসিন আবিস্কারের চেষ্টা চলতে রাত দিন। যেহেতু এই মরণব্যাধি মহামারি বিদায় নিবে না, তার জন্য অপেক্ষা করে ঘরে বসে থাকা যাবে না, দিন দিন বিভিন্ন দেশে লকডাউন শিথিল করা হচ্ছে, তাই করোনাকে সঙ্গী করেই বের হতে হবে জীবন যুদ্ধে। তাহলে নিজেকে কিভাবে নিরাপদ রাখবো?

বিভিন্ন সময় নানা গবেষণায় উঠে এসেছে নিরাপদে থেকে কর্মস্থল বা জীবন যাত্রা স্বাভাবিক করারা বিষয়টি। কিভাবে আপনি চলাচল করবেন সেই বিষয়গুলো গুরুত্ব দিয়ে বার বার বলা হলেও মানুষ এই এ নিয়ে খুব একটা ভাবেন না। বিশেষজ্ঞদের মতে, নিয়ম মেনে চললে স্বাভাবিক জীবন ফেরা সম্ভব তবে সর্তক থাকতে হবে প্রতিটি কাজে।

করোনা থেকে বাঁচতে সব সময় থাকতে হবে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন। বার বার হাত পরিস্কার রাখার বিষয়টি জোর দিয়ে বলার কারণ জীবাণু থাকতে পারে এমন স্থানে আপনি হাত দিয়ে ভুলে যেতে পারেন। বাহিরে বের হলে সাথে হ্যান্ড স্যানিটাইজার বা একটি সাবান সাথে রাখতে পারেন। টিস্যু বা পেপার সাথে রাখতে পারেন। কোথাও যদি হাত ধুয়ে নেবার সুযোগ হয় তাহলে ধুয়ে নিন, সেক্ষেত্রে বিশেষ কোন সাবানের প্রয়োজন সাধারণ সাবান হলেই চলবে।
সাধারণ মানুষের গ্লাভস পরার দরকার নেই। নিয়ম মেনে না পরলে বরং বিপদের আশঙ্কা বেশি। তার চেয়ে হাত ধুয়ে নেয়া অনেক নিরাপদ।

বাহিরে বের হলে অবশ্যই মুখে মাস্ক ব্যবহার করবেন। পরিবারের সদস্য ছাড়া বাহিরে অফিস বা বাজারে মাস্ক পড়ে থাকবেন। কাপড়ের তিনস্তরের মাস্ক আপনার জন্য অনেক ভালো। আপনার আসে পাশে ৬ ফুটের মধ্যে যেন কেউ মাস্ক না পড়ে আসে।

মাস্ক পড়লেই যে সবার সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে না তা কিন্তু নয়, এটা খেয়াল রাখতে হবে।

আরেকটা কথা আমরা ভুলে যাই যে, এই ভাইরাস চোখ দিয়ে প্রবেশ করতে পারে। যদি বিশে কোন চশমা না থাকে তাহলে আপনার কাছে যে চশমা আছে তা ব্যবহার করতে পারেন।

গয়নাগাটি পরে বেরবেন না। কারণ ধাতুর উপর প্রায় পাঁচ দিন থেকে যেতে পারে জীবাণু। ঘড়ি পরার দরকার নেই। নিয়মিত ধোয়া যায় এমন স্যান্ডেল বা জুতা পরে বের হবেন।

অফিসে নিজস্ব কাপ রেখে দেবেন। সাবানপানিতে ধুয়ে সেই কাপে চা বা কফি খাবেন। ক্যান্টিন থেকে যে পাত্রেই আসুন, চা-কফির তাপে সেখানে জীবাণু থাকবে না।

বাড়ি থেকে টিফিন নিয়ে যাবেন। নয়তো খোসা ছাড়িয়ে খেতে হয় এমন ফল খাবেন। প্যাকেটের বিস্কুট বা বাদাম খেতে পারেন মাঝেমধ্যে। প্যাকেট খুলে পরিষ্কার করে ধোয়া পাত্রে ঢেলে তারপর হাত ধুয়ে খাবেন।

রাস্তার পাশে লোভনীয় খাবার দেখে খেতে মন চাইতেই পারে। কিন্তু এসময় রাস্তার কিছু খাওয়া একদমই ঠিক নয়। সবচেয়ে ভালো হয় শুধুমাত্র বাড়িতে তৈরি খাবার খাওয়ার অভ্যাস করতে পারলে।

বাইরে থেকে ফিরে জুতা নিয়েই ঘরে ঢুকে যাবেন না। জুতা খুলে বাইরে রেখে তারপর ঘরে ঢুকবেন। ৫ দিন পর্যন্ত ভাইরাস লেগে থাকতে পারে জুতোয়। একাধিক জুতা থাকলে অদল-বদল করে পরুন। না থাকলে সাবানপানিতে জুতা ধুয়ে তারপর ঘরে ঢোকাতে পারবেন।

বাইরে থেকে ঘরে ফিরে নির্দিষ্ট কাবার্ড বা ঝোলায় ব্যাগ রেখে বাথরুমে গিয়ে জামাকাপড়, চশমা সাবানপানিতে ধুয়ে, তুলোয় স্যানিটাইজার ভিজিয়ে মোবাইল পরিষ্কার করে, ভালো করে সাবান-শ্যাম্পু করে গোসল করবেন।

বাড়িতে গৃহকর্মী বা অন্য কেউ এলে ঘরে ঢোকার আগে হাত এবং পা ভালো করে সাবান পানিতে ধুয়ে নিতে হবে। ধোয়া মাস্ক পরতে হবে। গোসল করে জামাকাপড় বদলে নিতে পারলে আরো ভালো।

খাবারের দিকে নজর দিতে হবে। হালকা খাবারই ভালো এই সময়। ঘরে বানানো সাধারণ খাবার খান। ভাজা-মিষ্টি একটু কম খাওয়া ভালো। ফল খাবেন নিয়মিত। মাছ-মাংস-ডিম খাবেন, যার যেমন সুবিধা। প্রচুর পানি খাওয়ার কোনো দরকার নেই। শরীর যতটুকু চায় ততটুকু খেলেই হবে।

কভেষজ উপাদান খেতে ইচ্ছে হলে খাবেন। না খেলেও ক্ষতি নেই। কারণ আদা, ভিনেগার ইত্যাদি ভাইরাস মারতে পারে না। পুষ্টিকর সহজপাচ্য খাবার খেলে, অল্প ব্যায়াম করলে ও ভালো করে ঘুমালে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এমনিই ঠিক থাকবে।

গায়ে হালকা রোদ লাগানো খুবই দরকার। সকালের দিকে একটু মর্নিং ওয়াকে গেলে ব্যায়ামও হবে, রোদও লাগবে গায়ে। ভাইরাস বাতাসে ভেসে বেড়ায় না। তাই ভয় নেই। মানুষের সঙ্গে দূরত্ব বজায় রাখাও সহজ হবে।

জিম বা বিউটি পার্লারে যাওয়ার দরকার নেই। বাড়িতেই যতটুকু সম্ভব শরীরচর্চা ও রূপচর্চা করবেন।

আপনার মতামত জানানঃ