স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায় ‘রেড মিট’

প্রকাশিতঃ ৭:৫৮ অপরাহ্ণ, শনি, ১০ আগস্ট ১৯

বেশি পরিমাণে গরু, ছাগলের মাংস খাওয়া স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায়। অন্যদিকে হাঁস-মুরগির মাংস হতে পারে এই রোগ থেকে দূরে থাকার পন্থা।
যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অফ ইনভায়রনমেন্টল হেল্থ সায়েন্স’য়ের করা একটি গবেষণায় এরকম ফলাফলই পাওয়া গিয়েছে।
এই প্রতিষ্ঠানের গবেষক ডেল পি. স্যান্ডলার বলেন, “ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাব্য কারণ হিসেবে ‘রেড মিট’ চিহ্নিত করা হয়েছে। আর আমাদের গবেষণা আরও এক ধাপ এগিয়ে প্রমাণ করেছে যে, লাল মাংস যেমন স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি বাড়ায় তেমনি মুরগি-হাঁস অর্থাৎ পোল্ট্রি মাংস কমাতে পারে এই রোগ হওয়ার ঝুঁকির পরিমাণ।”
‘ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ক্যান্সার’য়ে প্রকাশিত হওয়া ওই গবেষণার জন্য ৪২ হাজার ১২ জন নারীর মাংস গ্রহণ এবং মাংস রান্নার পদ্ধতির তথ্য প্রায় ৭.৬ বছর ধরে পর্যবেক্ষণ করেন গবেষকরা।
ফলো-আপের সময় ১ হাজার ৫শ’ ৩৬ জনের স্তন ক্যান্সারের লক্ষণ দেখা দেয়। দেখা গেছে ‘রেড মিট’ গ্রহণের ফলে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে ছিল। যারা কম পরিমাণে লাল মাংস গ্রহণ করছেন তাদের তুলনায় বেশি মাত্রায় লাল মাংস গ্রহণ করা নারীরা শতকরা ২৩ ভাগ স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিতে পড়েছেন।
অন্যদিকে দেখা গেছে যারা পোল্ট্রি মাংস কম খেয়েছেন তাদের তুলনায় বেশি মাত্রায় হাঁস-মুরগির মাংস গ্রহণ করা নারীদের স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি কমেছে ১৫ শতাংশ।
ভারতের ইন্দ্রপ্রদেশ অ্যাপোলো হাসপাতালের সার্জিকাল অনকোলজি’র বিশেষজ্ঞ পরাগ কুমার বলেন, “প্রসেসড মিট’ সাধারণত ‘রেড মিট’ থেকে তৈরি করা হয়, যাতে থাকে নাইট্রেইটস এবং নাইট্রাইটস যা পরবর্তিতে ভেঙে কারসিনোজেন বা ক্যান্সার হওয়ার উপাদানের রূপ নেয়। এজন্য সপ্তাহে ৪৫৫ গ্রামের কম রান্না করা লাল মাংস খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।”
ভারতের নদিয়াতে অবস্থিত জয়পি হাসপাতালের সার্জিকাল অনকোলজির জ্যেষ্ঠ পরামর্শক নিতিন লেখার মতে, ‘রেড মিট’ গ্রহণের পরিমাণ কমানোর পাশাপাশি স্তন ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি এড়াতে আরও নানান বিষয়ে সতর্কতার এবং জীবনযাত্রার মান উন্নয়ের দিকেও নজর রাখতে হবে।

আপনার মতামত জানানঃ