হরিপুরে আগাম জাতের ধানের বাম্পার ফলন, বাজার ধানের নায্যমুল্য না থাকায় কৃষক দিশেহারা

প্রকাশিতঃ ৫:৫২ অপরাহ্ণ, মঙ্গল, ৮ অক্টোবর ১৯

মোঃ আনোয়ার হোসেন,হরিপুর উপেজলা প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও জেলা হরিপুর উপজেলা উত্তর জনপদের ভারতীয়  সীমান্ত ঘেষা একটি কৃষি নির্ভর এলাকা। এখানকার মানুষে প্রধান আয়ের উৎস কৃষি।
মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ফসল ফলায় দাম নিয়ে দিশেহারা। হরিপুর  উপজেলায় আশ্বিন- কার্তিক মাসে এ অঞ্চলে মানুষের  এক সময় মঙ্গায় দিশেহারা হয়ে যেত।   আগাম জাতের আউশ ধানের একর প্রতি ফলন হচ্ছে ৮০- ৯০ মন। আগাম জাত ধান আবাদ করে মঙ্গা দুর হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে বাজারে ধানের মুল্য এখন মণ প্রতি ৫৫০ -৫৭০ টাকা।
প্রতি একরে যে উৎপাদন  খরচ হয়, বর্তমান বাজার ধান বিক্রয় করলে কৃষকে লোকসান পরতে হবে। কৃষকের  কৃষি  উপকরণ সহজলভ্য  হলে, হয়তো কিছুটা  লোকসান  কম হতো।  কৃষক তার সন্তানের লেখাপড়া খরচ ও সংসার চালাতে হিমসিম খাচ্ছে। বর্তমান বাজারে ধান বিক্রয় করলে, যে খরচ তা সার বিষের দোকানদারকে পরিশোধ করার পর কিছু থাকে না ।
গত বোরো মৌসুমে ধানের মুল্য পায় নি, এবার ও যদি ধানের মুল্য না পায়, নাহলে কৃষক  কৃষি কাজে  আগ্রহ  হারাবে।  কৃষকের দাবী তারা যেন ধানের নায্যমুল্য পায়

আপনার মতামত জানানঃ