১২শ বছরের পুরোনো মসজিদের সন্ধান

নিউজ ডেস্কঃ ইসরায়েল কর্তৃক দখলকৃত ফিলিস্তিনি ভূখণ্ড নেগেব মুরু অঞ্চলের রাহাত এলাকায় বসতি স্থাপনের প্রস্তুতিকালে ১২শ বছরের এক পুরোনো মসজিদের সন্ধান পাওয়া গেছে। আর বিশ্বব্যাপী প্রাচীন স্থাপনা আবিষ্কারে নিয়োজিত প্রত্নতত্ত্ববিদরা জানান এ মসজিদটি হতে পারে মসজিদে আকসার পরে সবচেয়ে পুরোনো ধর্মীয় প্রার্থনার স্থান মসজিদ।

গত ১৮ জুলাই (বৃহস্পতিবার) এ পুরোনো মসজিদটির সন্ধান পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্নতত্ত্ববিদরা।

পুরোনো স্থাপনা আবিষ্কারে নিয়োজিত প্রত্নতত্ত্ববিদরা যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ ফিলিস্তিনের ইসরায়েল দখলকৃত নেগেব মরুভূমির রাহাত অঞ্চলের বেদুইন অধ্যুষিত এলাকায় এ পুরোনো মসজিদের সন্ধান মিলেছে বলে ঘোষণা দেন তারা।

সপ্তাম কিংবা অষ্টম শতাব্দীতে নির্মিত এটি একটি ছোট শহুরে মসজিদ। এর অবস্থান বয়স ও নির্মাণ শৈলীর ওপর নির্ভর করে এটি পৃথিবীর বিরল আবিষ্কারের অন্তর্ভুক্ত হওয়ার প্রবল সম্ভাবনাও রয়েছে। মসজিদটি খনন কাজের দায়িত্বে থাকা জন সেলিগম্যান ও শাহার জুবা নামক কর্মকর্তারা এ তথ্য জানিয়েছেন।

Mosque

নেগেব মুরু অঞ্চলের সবচেয়ে বড় শহর বায়ের এলাকার উত্তরে এ ধরনের পুরোনো স্থাপনা এর আগে কখনও আবিষ্কৃত হয়নি।

কাবা অভিমুখী করে চতুর্ভুজ আকৃতির এ ভবনটি নির্মাণ করা হয়। পবিত্র নগরী মক্কার দিকে তৈরি মেহরাব দেখে সহজেই এটাকে মসজিদ হিসেবে চিহ্নিত করে।

মসজিদটি ছাড়াও এখানে পুরোনো কৃষি খামার আবিষ্কৃত হয়েছে। প্রত্নতাত্ত্বিকদের ধারণা, কৃষি খামারে অবস্থানরত কৃষকরাই এ মসজিদটি ব্যবহার করতেন।

এ মসজিদের ব্যাপারে প্রত্নতাত্ত্বিক গিদিওন আবনি বলেন, ‘নির্মাণের সময় বিবেচনায় মসজিদে আকসার পর এ মসজিদটিই এ অঞ্চলের সবচেয়ে পুরোনো মসজিদ। কেননা ৬৩৬ সালে আরবরা এ অঞ্চল বিজয় করেছিলেন।

আপনার মতামত জানানঃ