১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট হোটেল ওলিওতে হামলার ঘটনায়

১৪ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট হোটেল ওলিওতে হামলার ঘটনায়

নিজস্ব প্রতিবেদক: ২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবসের কর্মসূচিতে হামলার পরিকল্পনা এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অভিযানের সময় এক জঙ্গির আত্মঘাতী হামলার ঘটনায় এখন পর্যন্ত ১৫ জনের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছে মামলার তদন্তকারী সংস্থা ডিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট।

আত্মঘাতী হামলায় একজন নিহত হওয়ার কারণে বাকি ১৪ জনের বিরুদ্ধে মামলার চার্জশিট চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছে সংস্থাটি। চার্জশিট দাখিলের জন্য সরকারের সংশ্লিষ্ট পর্যায়ে পূর্ব অনুমোদনের জন্য এরইমধ্যে পাঠানো হয়েছে।

রোববার (১১ আগস্ট) ঘটনার প্রায় দুই বছরে তদন্তের অগ্রগতির বিষয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ তথ্য জানান জানান সিটিটিসি প্রধান মনিরুল ইসলাম।

মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার সঙ্গে ১৫ জনের সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে। তারা হলেন- আকরাম হোসেন খান নিলয়, তানভীর ইয়াসীন কবির, আবু তুরাব খান, সাদিয়া হোসনা লাকি, হুমায়রা জাকির নাবিলা, তাজরীন খানম শুভ, আব্দুল্লাহ আয়চান কবিরাজ, আবুল কাশেম ফকির, লুলু সরদার ওরফে শহিদ মিস্ত্রি, তাজুল ইসলাম ছোটন, নাজমুল হাসান মামুন, নব মুসলিম আব্দুল্লাহ, কামরুল ইসলাম শাকিল, তারেক মো. আদনান ও সাইফুল ইসলাম।

হামলাকারী সবাই নব্য জেএমবি’র সক্রিয় সদস্য। এদের মধ্যে সিটিটিসির অভিযানের সময় আত্মঘাতী হয়ে মারা গেছেন বোমা হামলাকারী সাইফুল ইসলাম। তাই বাকি ১৪ জনের নামে আমাদের চার্জশিট চূড়ান্ত করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত জীবিত ১৪ জনকেই গ্রেফতার করেছে সিটিটিসি। এদের মধ্যে ১০ জন ফৌজদারি কার্যবিধি ১৬৪ ধারা অনুযায়ী আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

তাদের কৃতকর্মের দায়দায়িত্ব ও প্রাপ্ত সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে তদন্ত শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জশিট দাখিলের জন্য সরকারের পূর্ব অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে।

মনিরুল ইসলাম বলেন, ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী অর্থাৎ মাস্টারমাইন্ড আকরাম হোসেন খান নিলয়, অর্থ সরবরাহকারী তানভীর ইয়াসীন কবির, আবু তুরাব খান, সাদিয়া হোসনা লাকি, হুমায়রা জাকির নাবিলা ও তাজরীন খানম শুভ।

ওই ঘটনায় বোমা সরঞ্জাম সরবরাহ করে আবুল কাশেম ফকির, লুলু সরদার ওরফে শহিদ মিস্ত্রি, তাজুল ইসলাম ছোটন।

ঢাকার একটি আস্তানায় বোমা প্রস্তুত করেছিলো নাজমুল হাসান মামুন। আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী ছিলেন সাইফুল ইসলাম যিনি ঘটনার সময় আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত।

ওই ঘটনায় আশ্রয়দাতা ও সহায়তাকারী নব মুসলিম আব্দুল্লাহ, কামরুল ইসলাম শাকিল, তারেক মো. আদনান ও আব্দুল্লাহ আয়চান কবিরাজ।

২০১৭ সালের ১৫ আগস্ট রাজধানীর ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের অদূরে পান্থপথে হোটেল ওলিও ইন্টারন্যাশনালের ভবনে জঙ্গিরা আশ্রয় নেওয়ার খবরে অভিযান চালায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

ওই অভিযানে সাইফুল নামে এক জঙ্গি আত্মঘাতী হন। ঘটনার পর সিটিটিসি জানায়, ১৫ আগস্ট ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শাহাদাতবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে বোমা হামলা চালানোর পরিকল্পনা ছিল নব্য জেএমবির।

আপনার মতামত জানানঃ