২০১৭ সালের জুলাই মাসের মধ্যে ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে আমরা বদ্ধপরিকর

প্রকাশিতঃ ৪:৩৮ অপরাহ্ণ, বুধ, ৩১ আগস্ট ১৬

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেছেন, ২০১৭ সালের জুলাই মাসের মধ্যে ভ্যাট আইন বাস্তবায়নে আমরা বদ্ধপরিকর।

বুধবার রাজধানীর ইনস্টিটিউট অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইডিবি) ভবনে ‘মূল্য সংযোজন কর ও সম্পূরক শুল্ক আইন-২০১২’ বিষয়ক এক কর্মশালায় তিনি এ কথা বলেন।

এনবিআরের ভ্যাট অনলাইন প্রজেক্ট ও ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) যৌথভাবে এ কর্মশালার আয়োজন করে। এতে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকরা অংশ নেন।

নজিবুর রহমান বলেন, আমরা আগামী জুলাইয়ের মধ্যে নতুন ভ্যাট আইন চালু করতে সব পরিবেশ প্রস্তুত করতে চাই। ইতিমধ্যে আমাদের অনলাইনে নিবন্ধনসহ গুরুত্বপূর্ণ কাজের জন্য এনবিআরের কর্মকর্তারা প্রস্তুত হয়েছেন। ভ্যাট আইনে আমরা কী কী বিষয়ে মনোযোগ দেব এবং আমাদের সাংগঠনিক কাঠামো কেমন হবে তা নির্ধারণ করেছি।

তিনি বলেন, নতুন আইন বাস্তবায়নের জন্য নতুন সাংগঠনিক কাঠামো তৈরি করা হবে। আর এটা বোর্ড থেকে শুরু করে মাঠ পর্যায়ে যাবে। আমরা টেরিটোরিয়াল ধারণা থেকে বের হয় ফাংশনাল সিস্টেমে যেতে চাই।

তিনি আরো বলেন, আমাদের তিনটি বিভাগ আয়কর, ইনকাম ট্যাক্স ও কাস্টমস অত্যন্ত সমন্বিতভাবে কাজ করে যাচ্ছে। পরিবর্তনের হাওয়া তিনটি বিভাগেই লেগেছে। ভ্যাট আইন বাস্তবায়নের পর্যায়ে রয়েছে। এ ছাড়া কাস্টমস আইনের খসড়া প্রণয়ন এবং ইনকাম ট্যাক্স আইনের খসড়া তৈরি করা হচ্ছে।

এনবিআর এখন একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান, এ কথা উল্লেখ করে নজিবুর রহমান বলেন, এনবিআর কোনো চাপ, ভীতির কাছে নতি স্বীকার করে না। দেশের স্বার্থে রাজস্ব বৃদ্ধির জন্য আইনগতভাবে যা করা প্রয়োজন, আমরা তাই করব। এখন সবার কাছে একটা বার্তা চলে গেছে, কেউ যদি অন্যায় করেন, তাহলে তাকে ন্যায়ের পথে চলে আসতে হবে।

তিনি বলেন, মানি লন্ডারিং একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। অনেক অর্থ আমরা বিদেশ থেকে ফিরিয়ে এনেছি। সরকার বুঝতে পেরেছে, এনবিআরকে ক্ষমতা দিলে উল্লেখ্যযোগ্য হারে মানি লন্ডারিং কমে আসবে। সম্প্রতি আমরা বেশকিছু মানি লন্ডারিং মামলা রুজু করেছি।

উন্নয়নের অগ্রযাত্রার শেষ নেই, উল্লেখ করে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, কর ব্যবস্থাকে আমরা দিন দিন ব্যবসা ও বিনিয়োগবান্ধব করছি। আমরা কোনো ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি করতে চাই না, সে ইচ্ছা আমাদের নেই। কর্মকর্তাদের সব সময় করদাতাদের হয়রানিমুক্ত রাখার জন্য সব নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

নজিবুর রহমান বলেন, আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম ইআরএফের সাথে আমরা পার্টনার হিসেবে কাজ করব। এই কর্মশালার মাধ্যমে সেই লক্ষ্যে এগিয়ে যাচ্ছি। আমরা যে রাজস্ববান্ধব সংস্কৃতি গড়তে চাই, তা আপনাদের মাধ্যমে বহু দূর এগিয়ে যাবে। ছোট ছোট কক্ষে বসে আমরা যে কাজকর্ম, গবেষণা বা বার্তা তৈরি করি, তা আপনাদের মাধ্যমে সারা দেশে ছড়িয়ে দেবেন।

কর্মশালায় এনবিআর সদস্য (ভ্যাট) ব্যারিস্টার জাহাঙ্গীর হোসেন, ভ্যাট অনলাইন প্রজেক্টের প্রকল্প পরিচালক রেজাউল হাসান, উপ-প্রকল্প পরিচালক-১ সৈয়দ মুসফেকুর রহমান, উপ-প্রকল্প পরিচালক-২ মো. জাকির হোসেন, কমিশনার জাকিয়া সুলতানা, অতিরিক্ত কমিশনার নাহিদা ফরিদী ভ্যাট অনলাইন প্রজক্টের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন ইআরইফের সভাপতি সাইফ ইসলাম দিলাল, সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান প্রমুখ।

আপনার মতামত জানানঃ