অস্কার নয়, কারা পেয়ে থাকেন কলা

বিনোদন ডেস্কঃ ‘গোল্ডেন কেলা অ্যাওয়ার্ডস’ বা ‘স্বর্ণ কদলী পুরস্কার’। বলিউডে ২০০৯ থেকে এই অনুষ্ঠান হয়ে আসছে।

এ বছরের সবচেয়ে খারাপ সিনেমা কী? নিকৃষ্টতম পরিচালক কে? নিকৃষ্টতম অভিনেতা কে? নিকৃষ্টতম অভিনেত্রীই বা কে? অস্কার বা অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডস তো শুনেছেন। দেশের মধ্যেও সেরা সিনেমাকে পুরস্কৃত করতে রয়েছে ন্যাশনাল অ্যাওয়ার্ডস ও অন্যান্য পুরস্কার। কিন্তু জানলে অবাক হবেন, সেরা নয়, সবচেয়ে খারাপ যে ছবিগুলি, তাদের জন্যও থাকে বিশেষ পুরস্কার।

নিকৃষ্টতমদের স্বীকৃতি দেওয়ার এই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানগুলির নামও বিচিত্র। ভারতে এই ধরনের একাধিক অনুষ্ঠান হয়ে থাকে। যেমন ‘গোল্ডেন কেলা অ্যাওয়ার্ডস’ বা ‘স্বর্ণ কদলী পুরস্কার’। বলিউডে ২০০৯ থেকে এই অনুষ্ঠান হয়ে আসছে।

দেখুন আগের একটি ‘গোল্ডেন কেলা অ্যাওয়ার্ডস’ অনুষ্ঠানের ভিডিও—

‘ঘণ্টা অ্যাওয়ার্ডস’ বা ‘ঘণ্টা পুরস্কার’-ও দেওয়া হয় বলিউডের সবচেয়ে খারাপ ছবি বা নিকৃষ্টতম কলাকুশলীদের। ২০১১ সালে এই পুরস্কার চালু হয়। এই রকমই ফিলম ফেয়ার অ্যাওয়ার্ডসের পাল্টা পুরস্কার হল ‘ফিলম ফেল অ্যাওয়ার্ডস’। ২০১৩ সাল থেকে বছরের সবচেয়ে ব্যর্থ সিনেমাটিকে বেছে নেওয়া হয় এই পুরস্কারের ক্ষেত্রে।

আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রেও চালু রয়েছে এমন উদ্ভট পুরস্কার। অস্কারের পাল্টা হিসেবে দেওয়া হয় গোল্ডেন র‌্যাসপবেরি অ্যাওয়ার্ডস। হলিউডের লড়ঝড়ে ছবিগুলিকে বেছে নেওয়া হয় এখানে। এই সব পুরস্কারগুলিই প্রমাণ করে বলি হোক বা হলি— ঝুল সিনেমার সংখ্যা কোথাওই কম নয়।

কড়া নিরাপত্তার মাঝেও নায়িকার ব্যাগ চুরি, বিড়ম্বনায় সাংবাদিকরা

নিউজ ডেস্ক: কড়া নিরাপত্তার মাঝেও নায়িকার ব্যাগ চুরি, বিড়ম্বনায় সাংবাদিকরা
মুক্তিযুদ্ধে পুলিশের অবদানের গল্প নিয়ে নির্মিত হতে যাচ্ছে সিনেমা ‘অর্জন ৭১’। মঙ্গলবার বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি) এর এটিএন বাংলা ফ্লোরে এর মহরত অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। আরও উপস্থিত ছিলেন পুলিশের ঊর্ধ্বতন বিভিন্ন কর্মকর্তা, চলচ্চিত্রের মানুষেরা।

মন্ত্রীসহ ভিআইপি অতিথিদের জন্য মঙ্গলবার দুপুর থেকেই এফডিসির গেটে বসেছিল কড়া নিরাপত্তা। সেই নিরাপত্তা ভেদ করে ভেতরে প্রবেশের জন্য বিড়ম্বনার শিকার হতে হয়েছে সাংবাদিকদের। বিড়ম্বনায় পড়েছেন অনেক অতিথিও। তাই এমন আমলাতান্ত্রিক আয়োজনে সিনেমার মহরত আয়োজন নিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন আমন্ত্রিত সাংবাদিক ও অন্যান্যরা।

এফডিসির মতো খোলা ভেন্যুতে এত নিরাপত্তার বেস্টনি দিনভর নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট মানুষদের কার্যক্রমে। অনেকেই পরিচালকের অপরিকল্পিত অনুষ্ঠান আয়োজনের সমালোচনাও করেছেন।

এদিকে, এত কড়া নিরাপত্তা আর তল্লাশির ভিড়েও ঘটেছে বিব্রতকর এক ঘটনা। অনুষ্ঠানে ব্যাগ চুরি গেছে আমন্ত্রিত অতিথি চিত্রনায়িকা শাহনূরের।

অনুষ্ঠান শুরুর কিছু সময় পর চিত্রনায়িকা শাহনূর মঞ্চে উঠেন আমন্ত্রিত অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করার জন্য। মঞ্চ থেকে নেমেই নিজের ব্যাগ হারানোর কথা জানান তিনি। এ সময় চারদিকে হৈ চৈ পড়ে যায়।

শাহনূর বলেন, ‘আমার আসনে ব্যাগ রেখে মঞ্চে উঠেছিলাম। নেমে দেখি ব্যাগ নেই। ব্যাগে আমার টাকা, আইফোনসহ প্রয়োজনীয় বেশ কিছু জিনিসপত্র ছিল।’

ঘটনাটি উপস্থিত পুলিশদের জানানো পরই শাহনূরের ব্যাগ খোঁজার তোড়জোড় শুরু হয়। এফডিসির গেটে বসানো হয় চেকপোস্ট। এরপর সাংবাদিকসহ সবার পকেট ও ব্যাগ চেক করা হয়। এতে করে দ্বিতীয় দফায় বিড়ম্বনার শিকার হন সাংবাদিক ও অতিথিরা। বিরক্তিকর এক অভিজ্ঞতা নিয়ে অনুষ্ঠান ত্যাগ করে হাঁফ ছেড়ে বাঁচেন সবাই।

ডেঙ্গু থেকে সেরে উঠছেন নির্মাতা সাদেক সিদ্দিকী

নিউজ ডেস্ক: চলচ্চিত্র নির্মাতা সাদেক সিদ্দিকী ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত শনিবার থেকে রাজধানীর ডা. সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গত তিনদিন বেশ আশঙ্কাজনক অবস্থায় দিন পার করেছেন এই নির্মাতা। তবে এখন আগে তুলনায় অনেকটাই ভালো আছেন তিনি।

বিষয়টি  নিশ্চিত করেছেন এই নির্মাতার ছেলে সাগর সিদ্দিকী। তিনি জানান, এখন ঝুঁকিমুক্ত তার বাবা সাদেক সিদ্দিকী। ধীরে ধীরে তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হচ্ছে। সাগর বলেন, ‘বাবার রক্তের প্লাটিলেট কমে গেছে। তাই রক্ত দিতে হচ্ছে। বাবার রক্তের গ্রুপ ‘এ’ পজেটিভ। গতকালও তাকে রক্ত দেয়া লেগেছে। তবে আজ কোনো রক্তের প্রয়োজন হয়নি। চিকিৎসকরা বলেছেন এখন তিনি ঝুঁকিমুক্ত। সবাই আমার বাবার জন্য দোয়া করবেন তিনি যেন তাড়াতাড়ি সুস্থ হয়ে উঠেন।’

এ পর্যন্ত ৮০টি একক, ২০টি টেলিফিল্ম, ৪টি ধারাবাহিক ও ৫টি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেছেন সাদেক সিদ্দিকী। তার নির্মিত সর্বশেষ চলচ্চিত্র হলো ‘হৃদয়ে ৭১’। তার আপকামিং চলচ্চিত্র ‘সাহসী যোদ্ধা’।

পরিচালক ও প্রযোজকের বাইরেও তার একটি পরিচয় আছে। তিনি একজন রাজনীতিবিদ। দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে টাঙ্গাইল ৮ বাসাইল সখীপুর আসনে জাতীয় পার্টি থেকে মনোনীত প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেছিলেন।

বাবা-মাকে ছাড়া কোনো জন্মদিন হয় না : রাইসুল ইসলাম আসাদ

 

নিউজ ডেক্সঃ ‘জন্মগ্রহণ করে পৃথিবীতে আসার পেছনে কিন্তু আমার কোনো হাত নাই। যাদের জন্য আমার পৃথিবীতে আসা, তারা হলেন আমার বাবা-মা। যারা আমাকে জন্ম দিয়েছেন তারা দু’জনই এখন পৃথিবীতে নাই। তাদেরকে ছাড়া আবার জন্মদিন হয় নাকি! বাবা-মাকে কোনো জন্মদিন হয় না!’

ছেলে-মেয়েরা জন্মদিনে এভাবেই বুঝি বাবা-মাকে মিস করেন! আবেগে সুরেই কথাগুলো বলছিলেন দেশের অন্যতম অভিনেতা রাইসুল ইসলাম আসাদ। আজ (১৫ জুলাই) তার জন্মদিন। ৬৭ বছরে পা রাখলেন তিনি। গুণী এই অভিনেতার জন্ম ১৯৫২ সালের ১৫ জুলাই, ঢাকায়। ছিলেন ঢাকা কলেজিয়েট স্কুলের ছাত্র। ১৯৭১ সালে দেশের স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে মুক্তিকামী বীরসেনানীদের সঙ্গে তিনিও ঝাঁপিয়ে পড়েন মুক্তিযুদ্ধে। দেখতে দেখতে জীবনের অনেকগুলো বছরই পার করে ফেললেন তিনি।

জন্মদিন প্রসঙ্গে আসাদ বলেন, ‘এটা নিয়ে আমার মধ্যে তেমন কোনও উচ্ছ্বাস কাজ করে না। জন্মদিনের মধ্যে এখন আমি আনন্দের কিছুই দেখি না। আমরা বলি বয়স বাড়ে। বয়স তো আসলে বাড়ে না, কমে যায়। ধীরে ধীরে মানুষ মৃত্যুর দিকে ধাবিত হয়। জন্মাইলে মরতে হবে এটাই সব চাইতে বড় সত্যি। সেই মৃত্যুর দিকেই এক বছর করে এগিয়ে যাওয়ার আয়োজন চলছে।’

বরাবরই একান্তে নিজের মতো থাকতে পছন্দ করেন রাইসুল ইসলাম আসাদ। এবারের জন্মদিনটা কীভাবে কাটছে ? জানতে চাইলে রাইসুল ইসলাম আসাদ বলেন, ‘এমন কিছু করে ফেলেনি যার কারণে আমার জন্মদিন নিয়ে হই চই হবে। বরাবরই এই দিনে নিজের মতো করে থাকি। এবারও তাই, বাসাতেই আছি। আর কিছু বলার নেই। সবার কাছে দোয়া চাই যেন ভালো থাকি, সুস্থ থাকি।’

রাইসুল ইসলাম আসাদ বেতার, মঞ্চে ও টেলিভিশনে অভিনয় করা শুরু করেন মুক্তিযুদ্ধের পর ১৯৭২ সালে। চলচ্চিত্রে তিনি নাম লেখান ১৯৭৩ সালে। খান আতাউর রহমানের ‘আবার তোরা মানুষ হ’ নামের আলোচিত ছবিটি ছিল প্রথম ছবি। এরপর ১৯৮০ সালে সালাহউদ্দিন জাকীর ‘ঘুড্ডি’, ১৯৮১ সালে সৈয়দ হাসান ইমামের ‘লাল সবুজের পালা’, ১৯৮৪ সালে কাজল আরেফিনের ‘সুরুজ মিঞা’-সহ এ পর্যন্ত অর্ধ শতাধিক ছবিতে অভিনয় করেন এই বহুমাত্রিক অভিনেতা।

এখনও ভালো চরিত্র মিললেই অভিনয় করেন রাইসুল ইসলাম আসাদ। শিগগিরই ‘আদম’ নামের একটি ছবির শুটিং শুরু করবেন তিনি।

তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য সিনেমাগুলোর মধ্যে আছে কালের পুতুল (২০১৮), আলতা বানু (২০১৮), মেয়েটি এখন কোথায় যাবে (২০১৭), গহীন বালুচর (২০১৭), যদি তুমি জানতে (২০১৬), গাড়িওয়ালা (২০১৫), অনুক্রোশ (২০১৪), একই বৃত্তে (২০১৩), মাটির পিঞ্জিরা (২০১৩), মৃত্তিকা মায়া (২০১৩), ক্ষীরমোহন মনের মানুষ (২০১০), সিরাজ সাঁই দূরত্ব (২০০৬), ঘানি (২০০৬), শামসু লালন (২০০৪) ,লালন আধিয়ার (২০০৩) , দীন দয়াল লালসালু (২০০১) ,মজিদ কিত্তনখোলা (২০০০), সোনাই হঠাৎ বৃষ্টি (১৯৯৯), প্রেমেন্দ্র নন্দীর বুকের ভেতর আগুন (১৯৯৭), দুখাই (১৯৯৭), সত্যের মৃত্যু নেই (১৯৯৬), অন্য জীবন (১৯৯৫), সুজন সখি (১৯৯৪), পদ্মা নদীর মাঝি (১৯৯৩), কুবের নতুন বউ (১৯৮৩), ঘুড্ডি (১৯৮০), আসাদ আবার তোরা মানুষ হ (১৯৭৩)।

রাইসুল ইসলাম আসাদ ১৯৭৯ সালের ৯ই নভেম্বর তাহিরা দিল আফরোজের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। তার একমাত্র কন্যার নাম রুবায়না জামান। চলচ্চিত্রে অভিনয় করে এখন পর্যন্ত তিনি ছয়বার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন। ‘পদ্মা নদীর মাঝি’, ‘অন্য জীবন’, ‘লালসালু’, ‘দুখাই’, ‘ঘানি’ ও ‘মৃত্তিকামায়া’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করে তিনি এ সম্মাননা লাভ করেন।

দেবের সঙ্গে নায়িকা রাধিকার গোপন ভিডিও ফাঁস

নিউজ ডেস্ক ঃ ভিন্নধর্মী গল্প আর চরিত্রের অভিনেত্রী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছেন রাধিকা আপ্তের। তার প্রতিটি চরিত্রেই দেখা যায় চ্যালেঞ্জ গ্রহণের ছাপ। নিজেকে প্রতিনিয়ত ভাঙেন-গড়েন। ছোট পোশাক থেকে ঘনিষ্ঠ দৃশ্য, সবকিছুতেই তার সাহসের প্রশংসা সর্বত্র। বলিউডের তুমুল প্রতিযোগিতার বাজারেও নিজেকে আলাদা করে প্রতিষ্ঠিত করেছেন তিনি। তবে এ অভিনেত্রী অভিনয়ের পাশাপাশি নানা কারণেই আলোচনায় আসেন। নিজের মর্যাদা রক্ষা করে চলা অন্যতম সাহসী নায়িকা তিনি। সম্প্রতি রাধিকাকে নিয়ে অনলাইন দুনিয়ায় ঝড় উঠেছে। ঘটনার মূলে রয়েছে একটি গোপন দৃশ্য। ‘দ্য ওয়েডিং গেস্ট’ নামের একটি সিনেমায় অভিনয় করেছেন রাধিকা। সেখানেও বেশ চ্যালেঞ্জিং একটি চরিত্রে দেখা দেবেন তিনি। এটি মুক্তি পেয়েছে এরই মধ্যে। এ ছবিতে তার সহ-অভিনেতা দেব প্যাটেল। সম্প্রতি এই সিনেমার একটি যৌনদৃশ্য অন্তর্জালে ফাঁস হয়েছে। বেশকিছু ছবিও দেখা যাচ্ছে। যেখানে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ধরা দিয়েছেন রাধিকা ও দেব। সেই ভিডিও এবং ছবিগুলো নিয়ে চলছে হৈ চৈ। তবে এসব নিয়ে একদমই মাথা ঘামান না রাধিকা। কারণ এর আগেও তার অন্তরঙ্গ দৃশ্য ফাঁস হয়েছিল। ফলে সমালোচনায় অভ্যস্ত তিনি।

২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে টরন্টো চলচ্চিত্র উৎসবে মাইকেল উইন্টারবটম পরিচালিত ‘দ্য ওয়েডিং গেস্ট’ সিনেমাটি প্রথম প্রদর্শিত হয়। মার্চে যুক্তরাষ্ট্রে মুক্তি পায় এ ছবি।

বুলবুল আহমেদ স্মৃতি সম্মাননা পেলেন এ টি এম শামসুজ্জামান

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃঢাকাই সিনেমার মহানায়ক খ্যাত অভিনেতা বুলবুল আহমেদের চলে যাওয়া ৯ বছর হয়ে গেলো। ২০১০ সালের ১৫ জুলাই তিনি না ফেরার দেশে পাড়ি জমান। তার স্মৃতিকে ধরে রাখতে এবং প্রবীণ বরণীয় শিল্পীদের স্মরণীয় করে রাখতে বুলবুল আহমেদের পরিবার ও বুলবুল আহমেদ ফাউন্ডেশনের পক্ষে প্রতিবছর সম্মাননা দেওয়ার আয়োজন করা হয়। সেই ধারাবাহিকতায় রোববার বুলবুল আহমেদ স্মৃতি সম্মাননা পদক দেওয়ার আয়োজন করেছে বুলবুল আহমেদ ফাউন্ডেশন।

এই বছর বুলুবুল আহমেদ স্মৃতি সম্মাননা পেলেন বর্ষীয়ান অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান। বর্তমানে তিনি রাজধানীর বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কেবিনে চিকিৎসাধীন। হাসপাতালেই এই গুনী অভিনেতার হাতে পুরস্কার তুলে দিয়েছে বুলবুল আহমেদের পরিবার। রোববার এই স্মৃতি স্মারক হাতে পেয়ে ভীষণ খুশি হন এ টি এম শামসুজ্জামান।

হাসপাতালের কেবিনে বুলবুল আহমেদ স্মৃতি সম্মাননা পদক দেওয়ার আয়োজনটি ছিলো অন্যরকম। যেখানে ফাউন্ডেশনের পক্ষে বুলবুল আহমেদের সহধর্মিণী ডেইজি আহমেদ ও কন্যা তাহসিন ফারজানা তিলোত্তমা পদক তুলে দেন এ টি এম শামসুজ্জামানের হাতে। সেখানে আরও ছিলেন এ টি এম শামসুজ্জামানের সহধর্মিণী রুনী জামান, মেয়ে, নাতনিসহ পরিবারের সদস্যরা। বুলবুল আহমেদ ঢাকাই সিনেমার দর্শকের কাছে চিরদিন শ্রদ্ধেয় হয়ে থাকবেন শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের অমর সৃষ্টি দুই চরিত্র ‘শ্রীকান্ত’ ও ‘দেবদাস’- এ দুর্দান্ত রূপদান করার জন্য। ‘রাজলক্ষ্মী শ্রীকান্ত’ ও ‘দেবদাস’-এই দুটি চলচ্চিত্র দিয়ে তিনি জায়গা করে নিয়েছিলেন সব শ্রেণির দর্শকের অন্তরে। এ ছাড়া ‘মহানায়ক’, ‘সীমানা পেরিয়ে’, ‘সূর্য্যকন্যা’ সিনেমাগুলোতে বুলবুল আহমেদ নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন অনন্য উচ্চতায়।

খোলামেলা ছবিতে আবারও ঝড় তুলেছেন দিশা

নিউজ ডেক্স ঃ মোহনীয় হাসি, নজরকাড়া সৌন্দর্য, অভিনয়ের সাবলীলতা দিয়ে তিনি এখন বলিউড মাতাচ্ছেন। আজকাল তিনি যেখানেই যান ঘিরে থাকে ক্যামেরা। তাকে নিয়ে আলোচনা হয়, তার প্রেম নিয়ে বলিউডের আকাশে ভেসে বেড়ায় নানারকম গুজব-গুঞ্জন। এসবই তার জনপ্রিয়তার বদৌলতে। জনপ্রিয় এই নায়িকা আর কেউ নন, তিনি দিশা পাটানি।

শুধু পর্দাতেই নয়, সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেশ সরব দিশা। নিয়মিত ভক্তদের মাতিয়ে রাখেন নানা রকম কর্মকাণ্ড করে। ইনস্টাগ্রামে মাঝে মধ্যেই নিজের বিভিন্ন ছবি শেয়ার করে ঝড় তোলেন। সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে নজরকাড়া ছবি পোস্ট করেছেন অভিনেত্রী। এই ছবিটিকে ঘিরেও ঝড় উঠেছে৷ ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, একটি অন্তর্বাস পরে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আছেন দিশা। নায়িকার কালো অন্তর্বাস পরা ছবি দেখে ঘুম ছুটেছে অনেকের। এদিকে দিশা পাটানি ছবির ক্যাপশনে লিখেছেন, যে ব্রান্ডের অন্তর্বাস পরে আছেন সেই ব্রান্ডের একটি নতুন কালেকশন লঞ্চ করতে শপিং মলে যাবেন তিনি। কিন্তু এই ছবিটির কারণে এখন ট্রলের শিকার হচ্ছেন দিশা।

দীপাবলীতেও অন্তর্বাসের সঙ্গে লেহেঙ্গা পরে সমালোচিত হয়েছিলেন এই অভিনেত্রী। এছাড়া সম্প্রতি নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে দিশা ব্যাকফ্লিপ ভিডিও প্রকাশ করেছেন। ইনস্টাগ্রামে দিশার ভিডিওটি এ পর্যন্ত ২৪ লাখ ৮৯ হাজারের বেশিবার দেখা হয়েছে। এ ছাড়া ইউটিউবেও ভক্তরা ভিডিওটি প্রকাশ করছেন। দিশা পাটানির আগামী সিনেমা ‘মালাঙ্গ’। সুপারহিট ‘আশিকি টু’র পরে ফের একসঙ্গে কাজ করছেন মোহিত সুরি ও আদিত্য রায় কাপুর।

ফাইনালে যেতে যৌন সম্পর্ক

নিউজ ডেক্সঃতুমুল জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো ‘বিগ বস’। এ মাসের শেষেই শুরু হতে চলেছে এর তেলুগুর তৃতীয় সিজন। অনুষ্ঠানটির উপস্থাপনা করবেন তেলেগু সুপারস্টার নাগার্জুন। সেখানে প্রতিযোগী হিসেবে রয়েছেন হায়দরাবাদের নারী সাংবাদিক শ্বেতা রেড্ডি। তিনি অভিযোগ করেছেন, ফাইনাল রাউন্ডে ওঠার জন্য রিয়্যালিটি শোয়ের উদ্যোক্তারা যৌনতার প্রস্তাব দিয়েছেন তাকে। তার দাবি, বিগ বসের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে আয়োজকদের সঙ্গে যৌনতায় লিপ্ত হলেই তাকে ফাইনালে নিয়ে যাওয়া হবে। সাংবাদিকের অভিযোগের ভিত্তিতে রিয়্যালিটি শো কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে একটি মামলাও দায়ের হয়েছে। মামলাটি করেছে বানজারা হিলস পুলিশ স্টেশন। সাংবাদিকের জবানবন্দি নিয়ে এরইমধ্যে ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

ভারতীয় গণমাধ্যমের বরাতে থানার সিনিয়র পুলিশ অফিসারের দাবি, ‘১৩ জুলাই আমরা একটি অভিযোগ পেয়েছি। একজন সিনিয়র সাংবাদিক ও সঞ্চালিকা অভিযোগ করেছেন যে গত মার্চে বিগ বস তেলুগুতে প্রতিযোগী নির্বাচিত হন তিনি। সেখানে চার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছিলেন তিনি। ফাইনাল রাউন্ডে যাওয়ার জন্য তাদের বসকে খুশি করতে হবে বলে তাকে প্রস্তাব দেওয়া হয়।

বিষয়টি নারীদের জন্য মানহানিকর। এর কঠোর শাস্তি হওয়া উচিত। পুলিশ তদন্ত করছে। এর সত্যতা পেলে অপরাধীদের শাস্তির আওতায় আনা হবে।’ ওই সাক্ষাতের সময় সাংবাদিকের বডি শেমিং করা হয় বলেও অভিযোগ উঠেছে।

মৃত্যুর মুখ থেকেই যেন ফিরে আসলেন বাবা : গাঙ্গুয়ার মেয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক ঃহঠাৎ করেই খবর আসে শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন চলচ্চিত্রের খল অভিনেতা গাঙ্গুয়ার। তাকে হাসপাতালের সিসিইউতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, অভিনেতার ফুসফুসে সংক্রমন বেশ আশঙ্কাজনক। সেই সংকট অবস্থা কাটিয়ে এখন অনেকটাই সুস্থতার পথে গাঙ্গুয়া। তার মেয়ে ফারজানা পপি বলেন, ‘সবার দোয়া ও আল্লাহর রহমতে বাবা সুস্থ হয়ে উঠছেন। তিনি যেন মৃত্যুকে হার মানিয়েই ফিরে এলেন।’ ঢাকাই সিনেমার জনপ্রিয় খল অভিনেতা পারভেজ গাঙ্গুয়া গত ১১ জুলাই রাত ১১টার দিকে স্ট্রোক করে ইবনে সিনা হাসপাতালে ভর্তি হন। গুরুতর অসুস্থ হলে তাকে দ্রুত নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়। সেখান থেকে পাঠানো হয় সিসিইউতে। সেখানে টানা দুইদিন চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণে থাকার পর তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হয়েছে। গত শনিবার (১৩ জুলাই) তাকে কেবিনে স্থান্তর করা হয়েছে। শনিবার সকালের নাস্তায় তিনি মুখে লিকুইড খাবার গ্রহণ করেছেন।

গাঙ্গুয়ার মেয়ে ফারজানা পপি বলেন, ‘বাবার অবস্থা আগের চেয়ে অনেক ভালো। তিনি স্বাভাবিকভাবে খাবার গ্রহণ করতে পারছেন। চিকিৎসকরা বলেছেন কিছুদিন তাদের তত্ত্বাবধানে থাকার পর বাসায় নিয়ে যেতে পারব বাবাকে। তাকে সম্পূর্ণ বিশ্রামে থাকতে হবে।’ চিকিৎসকদের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, বয়সের তুলনায় বাবার হৃদস্পন্দন, কিডনির অবস্থা বেশ ভালো। তবে ফুসফুসে সংক্রমণই তাকে ভোগাচ্ছে।

প্রসঙ্গত, মঞ্চ দিয়ে অভিনয় জীবন শুরু করেন গাঙ্গুয়া। পরে অভিনেতা জসীমের হাত ধরে চলচ্চিত্রে পা রাখেন। অভিনয় করেছেন প্রায় তিন শতাধিক চলচ্চিত্রে। গাঙ্গুয়া অভিনীত সর্বশেষ সিনেমা ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘রাজা বাবু’।

বিয়ের লোভ দেখিয়ে অভিনেত্রীকে ধর্ষণ

নিউজ ডেস্ক ঃ স্বামী-সংসারের স্বপ্ন দেখেই এক মডেল-অভিনেতার সঙ্গে ভালোবাসার সম্পর্ক গড়েছিলেন তরুণ অভিনেত্রী। প্রেমিককে বিশ্বাস করেই তার কাছে নিজেকে সপে দিয়েছিলেন তিনি। প্রায়ই ভারতের উত্তর প্রদেশ নয়ডা থেকে মুম্বাইয়ে এই মডেলের সঙ্গে দেখা করতে যেতেন অভিনেত্রী। আর এই সুযোগে ভালোবাসার মিথ্যে অভিনয় করে বিয়ের লোভ দেখিয়ে দিনের পর দিন এই অভিনেত্রীকে ধর্ষণ করে এই মডেল।

সেই অভিনেত্রী সম্প্রতি প্রাক্তন বয়ফ্রেন্ডের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন। জানা গেছে, পুলিশ এই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছে।পুলিশ আপাতত এই অভিনেতা ও অভিনেত্রীর নাম গোপন রেখেছে। জানা গেছে, ২০১৭ সালে ৩৪ বছরের মডেল-অভিনেতার সঙ্গে প্রথম দেখা হয় অভিযোগকারী অভিনেত্রীর। অভিযোগে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত তার সঙ্গিনীকে জানায়নি যে সে বিবাহিত। সে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস করে অভিযোগকারীর সঙ্গে।

মেয়েটিকে কোনও বন্ধুর সঙ্গে যোগাযোগ করতে বারণ করার পাশাপাশি কোনও পুরুষ অভিনেতার বা মডেলের সঙ্গে কাজ করতেও অভিযুক্ত নিষেধ করে বলে অভিযোগ। কথা না-শুনলে সে মেয়েটিকে মারধরও করে বলে পুলিশকে জানিয়েছেন অভিনেত্রী। বর্তমানে পুলিশ খুঁজছে সেই প্রতারক অভিনেতাকে। পুলিশ ধারণা করছে মুম্বাইয়ের বাইরে কোথাও পালিয়ে আছে সে।

গানের ভিডিওতে সারাটি জনম

নিউজ ডেক্সঃ  নতুন গান নিয়ে হাজির হচ্ছেন কণ্ঠশিল্পী সারোয়ার হোসেন ভুঁইয়া। গানটি প্রকাশ হচ্ছে ভিডিও আকারে। নতুন এ গানের নাম ‘সারাটি জনম’।প্রয়াত সামসুদ্দিন আহমেদ এছাকের কথা ও সুরে গানটির সংগীতায়োজন করেছেন অমিত। গানচিত্রে মডেল হিসেবে অভিনয় করেছেন আলভী মামুন ও আশফিয়া অহি। ভিডিওটি নির্মাণ করেছেন এম হক। নতুন গান সম্পর্কে সারোয়ার বলেন, ‘সারাটি জনম’ গানটির কথা, সুর ও সংগীত সব মিলিয়ে অসাধারন। চেষ্টা করে যাচ্ছি দর্শকদের ভালো কিছু উপহার দিতে। গল্প নির্ভর এই গান ও ভিডিওর সঙ্গে জড়িত সবাই নিজেদের জায়গা থেকে সেরাটা দিয়ে কাজ করেছেন। আশা করছি সবার ভাল লাগবে।’ এস এইচ বি অফিসিয়াল ইউটিউব চ্যানেলে খুব শীঘ্রই গানটির ভিডিও প্রকাশিত হবে বলে জানান এই কণ্ঠশিল্পী।

আবারও ঝড় তুলেছেন দিশা

বিনোদন প্রতিবেদকঃ মোহনীয় হাসি, নজরকাড়া সৌন্দর্য, অভিনয়ের সাবলীলতা দিয়ে তিনি এখন বলিউড মাতাচ্ছেন। আজকাল তিনি যেখানেই যান ঘিরে থাকে ক্যামেরা। তাকে নিয়ে আলোচনা হয়, তার প্রেম নিয়ে বলিউডের আকাশে ভেসে বেড়ায় নানারকম গুজব-গুঞ্জন। এসবই তার জনপ্রিয়তার বদৌলতে। জনপ্রিয় এই নায়িকা আর কেউ নন, তিনি দিশা পাটানি।

শুধু পর্দাতেই নয়, সোশ্যাল মিডিয়াতেও বেশ সরব দিশা। নিয়মিত ভক্তদের মাতিয়ে রাখেন নানা রকম কর্মকাণ্ড করে। ইনস্টাগ্রামে মাঝে মধ্যেই নিজের বিভিন্ন ছবি শেয়ার করে ঝড় তোলেন। সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামে নজরকাড়া ছবি পোস্ট করেছেন অভিনেত্রী। এই ছবিটিকে ঘিরেও ঝড় উঠেছে৷

ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে, একটি অন্তর্বাস পরে আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে আছেন দিশা। নায়িকার কালো অন্তর্বাস পরা ছবি দেখে ঘুম ছুটেছে অনেকের।

এদিকে দিশা পাটানি ছবির ক্যাপশনে লিখেছেন, যে ব্রান্ডের অন্তর্বাস পরে আছেন সেই ব্রান্ডের একটি নতুন কালেকশন লঞ্চ করতে শপিং মলে যাবেন তিনি। কিন্তু এই ছবিটির কারণে এখন ট্রলের শিকার হচ্ছেন দিশা।

দীপাবলীতেও অন্তর্বাসের সঙ্গে লেহেঙ্গা পরে সমালোচিত হয়েছিলেন এই অভিনেত্রী। এছাড়া সম্প্রতি নিজের ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলে দিশা ব্যাকফ্লিপ ভিডিও প্রকাশ করেছেন। ইনস্টাগ্রামে দিশার ভিডিওটি এ পর্যন্ত ২৪ লাখ ৮৯ হাজারের বেশিবার দেখা হয়েছে। এ ছাড়া ইউটিউবেও ভক্তরা ভিডিওটি প্রকাশ করছেন।

দিশা পাটানির আগামী সিনেমা ‘মালাঙ্গ’। সুপারহিট ‘আশিকি টু’র পরে ফের একসঙ্গে কাজ করছেন মোহিত সুরি ও আদিত্য রায় কাপুর।

শ্রীদেবীর রহস্যময় মৃত্যু নিয়ে মুখ খুললেন না বনি

 

নিউজ ডেক্সঃ বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যু হয়েছে গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে। তার মৃত্যু রহস্যময় হয়ে আছে আজও। গুণী এই অভিনেত্রীকে আসলে খুন করা হয়েছে এমন অভিযোগ উঠেছে। ভারতীয় জেলের ডিজিপি ঋষিরাজ সিং এই অভিনেত্রীর মৃত্যু নিয়ে নতুন করে বিতর্ক তৈরি করেছেন।

শ্রীদেবীর মৃত্যুকে দুর্ঘটনা বলে মেনে নিতে নারাজ তিনি। তার দাবি, পরিকল্পিতভাবে খুন করা হয়েছে শ্রীদেবীকে। এই মৃত্যুর জন্য দায়ী বনি কাপুর, এমন অভিযোগ আগেই উঠেছিল। সম্প্রতি বনিকাপুরের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ফরেনসিক এক্সপার্টের বিস্ফোরক এ দাবিকে কোনো পাত্তাই দেননি তিনি।ঘটনার বিষয়ে জানতে উৎসুক হয়ে পড়ে সংবাদমাধ্যমগুলোও। এ বিষয়েই বনি কাপুরের সঙ্গে যোগাযোগ করে একটি ওয়েব পোর্টাল। ঋষিরাজ সিংয়ের এহেন মন্তব্যের বিষয়ে বনির প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে বনি কোনো উত্তর দেননি। এটাকে ভিত্তিহীন গল্প বলেছেন তিনি।

এদিকে ঋষিরাজ বলেছিলেন, আমার বন্ধু প্রয়াত ফরেনসিক বিশেষজ্ঞ ড. উমাধাথন অনেক দিন আগে আমাকে জানিয়েছিল অভিনেত্রী শ্রীদেবীর মৃত্যুর নেপথ্যে খুন হয়ে থাকতেই পারে। কিন্তু এটা কখনই দুর্ঘটনাবশত মৃত্যু নয়।

২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে দুবাইয়ের এক পারিবারিক বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে শ্রী দেবীর মৃত্যু হয়। হোটেলের বাথরুমের বাথট্যাবে ডুবে গিয়ে শ্রীদেবীর মৃত্যু হয়েছে বলে ময়নাতদন্তের রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়। সেই সময়ও এ রিপোর্ট বিশ্বাস করেননি অনেকেই। নতুন করে তদন্তের দাবিতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিলেন এক পরিচালক। তাতেও তেমন কোনো লাভ হয়নি।

শ্রীদেবীর মৃত্যুর দেড় বছর পর ঋষিরাজ সিং সেই আগুনেই ঘি ঢেলেছেন। তিনি জানান, তার বন্ধু ড. উমাধাথন তাকে বলেছেন, একজন মানুষ যতই মদ্যপ থাকুক না কেন এক হাঁটু জলে ডুবে যাবে না। সে তখনই ডুবে যাবে যখন তার পা ধরে টানা হবে এবং মাথা জলে চুবিয়ে রাখা হবে। এ মন্তব্যের পর থেকেই শ্রীদেবীর মৃত্যু নিয়ে আবারও বিতর্কের ঝড় উঠেছে বলিউডে।

একই ভুল করে আবারও বিতর্কিত নোবেল

নিউজ ডেক্স ঃ ভারতীয় টেলিভিশনের গানের প্রতিযোগিতা ‘সারেগামাপা’য় একের পর এক গান গেয়ে আলোচনায় এসেছেন। এই মঞ্চে গান গেয়ে বাংলাদেশ ও ভারতে প্রচ‌ুর ভক্ত তৈরি হয়েছে তার। এ জনপ্রিয়তা পাওয়ার পেছনে আছে দুই বাংলার সুপারহিট কিছু গান। তিনি বাংলাদেশের প্রতিযোগী নোবেল। ভক্তদের কাছে তিনি নোবেলম্যন নামে পরিচিত।

জনপ্রিয় গানগুলো নতুুন আয়োজনে নোবেল উপস্থাপন করেছেন ‘সারেগামাপা’র মঞ্চে। নোবেল প্রশংসা পেয়েছিলেন প্রিন্স মাহমুদের কথা ও সুরে জেমস’র গাওয়া ‘বাবা’ গানটি কাভার করে। কিন্তু গানটি গাওয়ার সময় প্রিন্স মাহমুদের নাম বলেননি নোবেল। এ কারণে ব্যাপক সমালোচিত হয়েছিলেন তিনি। এরপর অবশ্য ক্ষমাও চেয়ে নিয়েছিলেন।

পরিতাপের বিষয়, এর পরও নিজেকে শুধরে নেননি নোবেল। একই ভুল করে চলছেন। ‘সারেগামাপা’তে প্রিন্স মাহমুদের কথা ও সুরের তিনটি গান গেয়েছেন। ‘বাবা’, ‘মা’ এবং ‘এত কষ্ট কেন ভালবাসায়’। তিনবারের একবারও গীতিকার বা সুরকার হিসেবে প্রিন্স মাহমুদের নাম উচ্চারণ করেননি তিনি। ‘এত কষ্ট কেন ভালবাসায়’ গানটি গাওয়ার সময় গানটিকে আর্ক ব্যান্ডের গান বলেও উল্লেখ করেন, যা ভুল তথ্য। বিষয়টি প্রিন্স মাহমুদের নজরে আসার পরে একটি স্ট্যাটাসে প্রিন্স মাহমুদ লিখেছেন, “দুঃখিত, এতো কষ্ট কেন ভালবাসায় আর্ক ব্যান্ডের গান না। এটা ১৯৯৮ সালে রিলিজ হওয়া আমার কথা ও সুরে মিক্সড অ্যালবাম ‘শেষ দেখা’তে হাসান গেয়েছিল।”

প্রিন্স মাহমুদের এই স্ট্যাটাসে কমেন্ট করেছেন সংগীতাঙ্গনের অনেকেই। এত বড় একটা প্ল্যাটফর্মে গাইতে গিয়ে বারবার একই ভুল করায় নোবেলের কঠোর সমালোচনা করেছেন কেউ কেউ। কেউ বলছেন তার এই ভুল ইচ্ছাকৃত। নোবেলকে ধূর্ত বলেও সমালোচনা করেছেন কেউ কেউ।

এক ব্যক্তি মন্তব্য করেছেন, ‘অন্য কারো গান কাভার করার সময় সেই গানের গীতিকার, সুরকার ও শিল্পীর নাম-সঠিকভাবে বলা উচিত। এই চর্চাটা দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে। শিল্পীদের নাম বললেও অধিকাংশ শিল্পীই গান কাভার করার সময় গীতিকার ও সুরকারের নাম উল্লেখ করেন না। এটা ঠিক নয়। নোবেলকে শুধরানো উচিত, তার পাশাপাশি আরও যারা এমনটা করেন তাদেরও শুধরানো উচিত।’

আয়ের রেকর্ড করলো হৃত্বিকের নতুন সিনেমা

নিউজ ডেক্স ঃ বলিউডের সুপারহিরো হৃত্বিক রোশন নিজেই নিজেকে ছাপিয়ে গেলেন। বক্স অফিসে তার নতুন ছবিটি বাজিমাত করেছে। জন্ম দিয়েছে রেকর্ডেরও। প্রথম দিনের আয়ের হিসেবে নিজের সর্বশেষ সফল ছবি ‘কাবিল’র রেকর্ড ভেঙে দিলেন হৃত্বিক। এ নায়কের ‘সুপার ৩০’ নামে ছবিটি মুক্তি পায় ১২ জুলাই। মুক্তির পর বক্স অফিসে আধিপত্য বিস্তার করেছে এ ছবি। এটি ওপেনিংয়ে অজয় দেবগণের ‘রেইড’ ও অক্ষয় কুমারের ‘প্যাডম্যান’ চেয়েও বেশি আয়ের রেকর্ড করেছে। এ ছবিতে বিহারের গণিত বিশারদ আনন্দ কুমারের জীবনী নিয়ে পর্দায় ফিরেছেন হৃত্বিক রোশন। আগেই ছবির বিভিন্ন লুক ও টিজারে আলোচনার জন্ম দিয়েছেন তিনি। ধারণা করা হচ্ছিলো ছবিটি হলে দর্শক টানবে। মুক্তির পর সেই ধারণাই সত্যি হলো।

প্রথম দিন বক্স অফিসে ‘সুপার ৩০’ ছবিটি রোজগার করেছে ১১.৮৩ কোটি টাকা। বলিউডের ফিল্ম ট্রেড অ্যানালিস্ট তরণ আদর্শ হৃত্বিকের এই ছবির প্রথম দিনের কালেকশন নিয়ে ট্যুইট করেছেন। সেখানে তিনি এই অঙ্কের উল্লেখ করেছেন। এদিকে উইকিডিয়া বলছে, দুই দিন শেষে এ ছবির আয় ২০ কোটি টাকারও বেশি।

এদিকে ছবি মুক্তির পর থেকেই বলিউডের বিভিন্ন তারকাদের প্রশংসায় ভাসছেন হৃত্বিক। তার লুক, অভিনয় দেখে মুগ্ধ সবাই। অনেকেই মন্তব্য করেছেন ছবিটি হৃত্বিকের ক্যারিয়ারে নতুন মাইলফলক যোগ করবে।

গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী বিজয় রুপানিও ছবিটি দেখেছেন এবং নিজের মতামত জানিয়েছেন সোশ্যাল মিডিয়ায়। ছবির দারুণ প্রশংসা করেছেন তিনি।

হত্যা রহস্য নিয়ে সাত নম্বর সনাতন সান্যাল

নিউজ ডেক্সঃ হত্যা রহস্য নিয়ে নির্মিত হয়েছে ওয়েব ফিল্ম ‘সাত নম্বর সনাতন সান্যাল’। সিনেমাটি লিখেছেন এবং পরিচালনা করেছেন অন্নপূর্ণা বসু। এতে দারুণ একটি চরিত্রে কাজ করেছেন কলকাতার জনপ্রিয় অভিনয়শিল্পী কৌশিক গাঙ্গুলি।

এর মাধ্যমেই প্রথম ডিজিটালি কোনো নির্মাণের সঙ্গে যুক্ত হলেন কৌশিক। তার সাথে এ সিনেমায় গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে আরও অভিনয় করেছেন শাওলি চ্যাটার্জি, শিলাজিৎ মজুমদার, সোহেব ভট্টাচার্য, দেবদূত ঘোষ, বিভাস চক্রবর্তী, অধিকারী কৌশিক এবং সোহম মিত্র। এটি দেখা যাবে জি এন্টারটেইনমেন্ট এন্টারপ্রাইজ লিমিটেডের ডিজিটাল প্লাটফর্ম জি ফাইভে।

‘সাত নম্বর সনাতন সান্যাল’ সিনেমাটি ৪৫ বছর বয়সী বিক্রয় প্রতিনিধি সনাতন সান্যালকে ঘিরে নির্মিত কৌতুহল উদ্দীপ্ত হত্যা রহস্য। সনাতনের আত্মবিশ্বাসের অভাব তাকে ব্যক্তিগত ও পেশাগতভাবে হতাশ করে তুলেছিল। এর মধ্যেই তার জীবন ভিন্ন এক দিকে মোড় নেয় যখন চাকরিতে তাকে নিজের নামের ব্যক্তিদের খোঁজার দায়িত্ব দেওয়া হয়।

এক একজন সনাতন সান্যালের সাথে দেখা হওয়া তার বিশেষ কিছু প্রাপ্তি বা ত্যাগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এরপর যতই দিন যেতে থাকে ততই তার গ্রাহকরা একের পর এক অদৃশ্য হয়ে যেতে থাকে। আর এসব ঘটনা তাকে বিশ্বাস, ক্ষতি ও প্রতিশোধের এক ভয়ানক যাত্রার দিকে ঠেলে দেয়।

অভিনয়শিল্পী কৌশিক গাঙ্গুলি এই সিনেমা নিয়ে বলেন, ‘নিরবতার শক্তিই সনাতনের নিজের ভেতরের বোঝাপড়ার আলাপচারিতাকে বের করে নিয়ে আসে। অন্নপূর্ণা সনাতনের নিরবতার মাধ্যমেই তার কথা প্রকাশ করতে চেয়েছিলেন। আমি যখন অভিনয় করেছি তখন এটাই আমার শক্তি হিসেবে কাজ করেছে।’

পরিচালক অন্নপূর্ণা বসু বলেন, ‘আমি নিশ্চিত ‘সাত নম্বর সনাতন সান্যাল’ সিনেমার দৃশ্যের পর দৃশ্য দর্শকদের নিবিষ্ট করে রাখবে। এটি খুব চমকপ্রদ ও গতিশীল একটি চলচ্চিত্র। বর্তমান সময়ে যেখানে ডিজিটাল বিনোদন খুব দ্রুত বিকশিত হচ্ছে, সেখানে জিফাইভ তার প্লাটফর্মের জন্য খুব ভালো কন্টেন্টে বিনিয়োগ করায় আমরা খুব আনন্দিত। আমরা বিশ্বাস করি এই প্ল্যাটফর্মের ব্যাপক বিস্তারের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের সিনেমাও অনেক বেশি দর্শকের কাছে পৌঁছাবে।’

নতুন এ সিনেমার মুক্তির বিষয়ে জিফাইভ গ্লোবালের প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তা অর্চনা আনন্দ বলেন, ‘নিঃসন্দেহে ‘সাত নম্বর সনাতন সান্যাল’ সিনেমাটি আমাদের প্ল্যাটফর্মের কন্টেন্টে ভিন্ন এক মাত্রা যোগ করেছে। আমি নিশ্চিত এটি পুরো বিশ্বের দর্শকদের রোমাঞ্চিত করবে।’

বলিউডে মাত্র পাঁচজন তারকা

নিউজ ডেস্ক ঃ বছরের পর বছর বলিউড মাতিয়ে আসা তারকাদের সবাই চেনেন। নতুন করে তাদের পরিচয় করিয়ে দেওয়ার কিছুই নেই। তাদের ছবি মুক্তি পেলেই বক্স অফিসে ঝড় তোলে। এই সময়ে নতুন কিছু তারকাও বলিউডে বাজিমাত করছেন। অনেকে আসছেন জয় করছেন আবারও বিদায়ও নিচ্ছেন। তাহলে আসল তারকা কারা? সুপারস্টার সালমান খান পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন সেই পাঁচ তারকার সঙ্গে। সালমান খান জানালেন, বলিউডে আছেন শুধুই পাঁচজন তারকা। এই তালিকায় রয়েছেন শাহরুখ খান, আমির খান, সালমান খান, অক্ষয় কুমার, অজয় দেবগণ। এই নামগুলো বলে তার ব্যাখ্যাও দিয়েছেন সালমান। ফিল্মফেয়ারের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে সলমান বলেছেন, ‘স্টারিজম ধীরে ধীরে মিলিয়ে যায়। দীর্ঘ দিন ধরে এটি ধরে রাখা সত্যিই খুব কঠিন কাজ। আমার মনে হয় শাহরুখ, আমির, আমি, অক্ষয়, অজয় আমরা পাঁচজনই এটা দীর্ঘ দিন ধরে রাখতে পেরেছি। আমরা চেষ্টা করছি আরও কয়েক বছর এটা ধরে রাখার।’

সালমান খান বর্তমানে দাবায় থ্রি সিনেমার শুটিং নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। প্রভুদেবার পরিচালনায় এই ছবিতে সালমানের বিপরীতে অভিনয় করছেন সোনাক্ষী সিনহা, ডিম্পল কাপাডিয়া, আরবাজ খান ও সুদীপ। এছািড়া শিগগিরই আলিয়াকে নিয়ে সঞ্জয় লীলা বানশালীর ‘ইনশাল্লাহ’ ছবির শুটিং শুরু করবেন সাল্লু ভাই

এরশাদের মৃত্যুতে যা বললেন শোকাহত সোহেল রানা

বিনোদন প্রতিবেদকঃ জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মারা গেছেন। আজ (রোববার) সকাল পৌনে ৮টার দিকে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন। এরশাদের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বাংলা চলচ্চিত্রের জনপ্রিয় নায়ক মাসুদ পারভেজ ওরফে সোহেল রানা ।

রোববার সকাল ১০টায় সোহেল রানার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হয়। ফোনটি রিসিভ করেই নির্বাক হয়ে থাকেন তিনি। ধরা গলায় শুধুই এতটুকু বললেন, ‘এই সময় আর কি বলার থাকে! আগে সামলে উঠি, তারপর কথা বলি!’ নিজের দলের চেয়ারম্যানের মৃত্যুতে ভীষণ রকম ভেঙে পড়েছেন সোহেল রানা। আর কথা বাড়ালে পারলেন না সোহেল রানা। দীর্ঘ দিন থেকেই জাতীয় পার্টির সঙ্গে যুক্ত সোহেল রানা। দলটির দুর্দিনেও পাশে থেকে সাহস জুগিয়ে এসেছেন সব সময়। তার ফেসবুকে ঢুকলেই দেখা যায় এরশাদের সঙ্গে একটি হাস্যজ্জ্বল ছবি। ছবিটি এখন শুধুই স্মৃতি। ছবি আছে কিন্তু ছবির মানুষটি নেই।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-২ (উজিরপুর-বানারীপাড়া) আসন থেকে জাতীয় পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনও করেছিলেন সোহেল রান।

৯০ বছর বয়সী এরশাদ রক্তে সংক্রমণসহ লিভার জটিলতায় ভুগছিলেন। গত ২২ জুন সিএমএইচে ভর্তি করা হয় তাকে। এর আগেও তিনি একাধিকবার দেশ-বিদেশে চিকিৎসা নেন।

রংপুর-৩ আসন থেকে বারবার নির্বাচিত সংসদ সদস্য এরশাদের জন্ম ১৯৩০ সালের ১ ফেব্রুয়ারি। তিনি রংপুর জেলার দিনহাটায় জন্মগ্রহণ করেন। এরশাদ বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান, এককালীন প্রধান সামরিক প্রশাসক ও রাষ্ট্রপতি ছিলেন।

গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ জয়ের পর টানা তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত হন। জোটগতভাবে নির্বাচন করে ২২টি আসনে জয়ী হয় জাতীয় পার্টি।

নয় বছরের পরিচিত পাত্রকে বিয়ে করছেন অভিনেত্রী আফ্রি

নিউজ ডেক্সঃ ‘ওম্যান্স ওয়ার্ল্ড’-এর ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে ২০১১ সালে শোবিজে যাত্রা শুরু করেছিলেন আফ্রি সেলিনা। এরপর মডেলিং ও অভিনয় নিয়ে ব্যস্ত রেখেছেন নিজেকে। ছোট পর্দা ছাপিয়ে বড় পর্দাতেও অভিনয় করেছেন তিনি। বেশ কিছু মিউজিক ভিডিওতে দেখা গেছে তার জ্বলজ্বলে উপস্থিতি। বর্তমানে ব্যস্ত রয়েছেন আসন্ন ঈদের বেশ কিছু নাটক ও মিউজিক ভিডিও নিয়ে।
তারই ফাঁকে দিলেন দারুণ এক খবর। জীবনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ইনিংশ শুরু করতে যাচ্ছেন তিনি। অর্থাৎ বসছেন বিয়ের পিঁড়িতে।

আফ্রি নিজেই নিশ্চিত করেছেন, সম্প্রতি বাগদান সেরেছেন তিনি। গতকাল শুক্রবার (১২ জুলাই) রাতে রাজধানীর বসুন্ধরার নিজ বাসায় এক ঘরোয়া আয়োজনে দুই পরিবারের সম্মতিতে আংটি বদল হয়েছে তার।
পাত্র হৃদয় খান পেশায় একজন ব্যবসায়ী। বাড়ি কুমিল্লা হলেও পাত্রের পরিবার ঢাকায় থাকেন। পাত্রের সঙ্গে বেশ অনেকদিন ধরেই আফ্রির পরিচয়। তাদের মধ্যে বেশ ভালো একটা জানাশোনা ছিল প্রায় নয় বছর ধরে। আফ্রির মায়ের পছন্দেই অবশেষে তাদের চার হাত এক হল।
আফ্রি তার এ বিয়ের ব্যাপারে বলেন, ‘আমার মায়ের পছন্দেই সবকিছু হয়েছে। তবে ছেলেকে আমি অনেকদিন ধরেই চিনি। আমার মা যখন অসুস্থ ছিলেন অনেকদিন তখন সে আমাদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছিলো। তখন থেকেই তার প্রতি আমার মায়ের একটা ভালো লাগা তৈরি হয়েছে। মায়ের ইচ্ছাকেই আমি সম্মতি দিয়েছি।’

বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা কবে সারবেন জানতে চাইলে আফ্রি বলেন, ‘সবেমাত্র আংটি বদল হয়েছে। তবে আমরা দুজন নিজেদেরকে আরও একটু সময় দিতে চেয়েছি। যার কারণে বিয়ের জন্য একটু সময় নিচ্ছি। চলতি বছরের শেষের দিকে নয়তো আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে বিয়ের কাজটা সম্পন্ন হবে। তখন অনুষ্ঠান করে সবকিছু হবে।’
আফি তার বাগদানের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করেছেন। সেখানে ক্যাপশন লিখেছেন বেশ মজা করে। তিনি লেখেন, ‘জীবনে প্রথমবার পরিবারের কোনো সিদ্ধান্তকে গুরুত্ব দিলাম’।
প্রসঙ্গত, ২০১১ সালে নাঈম তালুকদারের নির্দেশনায় ওপার বাংলার ইন্দ্রনীলের বিপরীতে ‘অন্যপথ’ চলচ্চিত্রে প্রথমবারের মত অভিনয় করেন। এরপর মনিরুল ইসলাম সোহেলের ‘স্বপ্ন যে তুই’ ও কলকাতার ‘স্মৃতিমালা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।
মুক্তির অপেক্ষায় আছে আফ্রি অভিনীত ইদ্রিস হায়দার পরিচালিত ‘নীল ফড়িং’ চলচ্চিত্রটি। আশা করা যাচ্ছে আগামী কোরবানির ঈদে আফ্রি অভিনীত এ ছবিটি মুক্তি পাবে।
এছাড়া এখন পুরোদমে ব্যস্ত রয়েছেন ছোট পর্দার কাজ নিয়ে। আসছে ঈদে বেশ কিছু নাটকের কাজ শেষ করেছেন, হাতে রয়েছে আরও বেশ কিছু কাজ

ঢাকাই সিনেমার ‘পোস্টারম্যান’ দিলদারের মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বিনোদন প্রতিবেদক :  তিনি ছিলেন ঢাকাই সিনেমার ব্র্যান্ড। যতো বড় নায়ক-নায়িকারই ছবি হোক না কেন পোস্টারে দিলদার ছিলেন অবধারিত। ইন্ডাস্ট্রির মানুষেরা তাকে সিনেমার ‘পোস্টারম্যান’ হিসেবেও সম্মান দেখাতেন। সিনেমাতে তার উপস্থিতি মানেই বাড়তি বিনোদনের আহ্বান। গল্পে আর চরিত্রে তিনি দুঃখ ভুলানো মানুষ। ছবি দেখতে দেখতে কষ্ট-বেদনায় মন যখন আচ্ছন্ন হয়ে থাকতো তখনই তিনি হাজির হতেন হাসির সুবাস ছড়িয়ে। বাস্তবতার দৈনন্দিন ঘানি টানা শেষে ক্লান্ত শরীরে সাধারণ দর্শক যখন তার অভিনয় দেখতেন, তখন তারা মুগ্ধ হতেন, প্রাণ খুলে হাসতেন, ভুলে যেতেন সারা দিনের সব কষ্ট। তার হাঁটা-চলা, বাচন ভঙ্গি, অভিনয়ের সাবলীলতার পরতে পরতে থাকতো আনন্দের ছড়াছড়ি।

শুধু তাই নয়, তার অভিনীত চলচ্চিত্রের কাহিনিতে কিংবা নায়ক-নায়িকার অভিনয় দক্ষতায় ঘাটতি থাকলেও দর্শক সেটি দেখতে এতটুকু বিরক্ত হননি। এমনকি অনেক চলচ্চিত্রের শেষ দৃশ্যে তার সংলাপ দিয়েই কাহিনির শেষ হওয়াটা স্বাভাবিক ব্যাপারে পরিণত হয়েছিল এই ইন্ডাস্ট্রিতে। তিনি দিলদার। একটা সময় ছিলো যখন, কেউ কাউকে হাসালেই তাকে ‘দিলদার’ উপাধি দেয়া হতো। বলা চলে প্রবাদে পরিণত হয়েছিলেন এই অভিনেতা। আশি-নব্বই দশকের চলচ্চিত্রে দিলদার আর কৌতুক হয়ে ওঠেছিলো সমার্থক।

অনেকদিন হলো তিনি আর বেঁচে নেই। তাকে আর মনেও পড়ে না তেমন করে। নিরবেই চলে যায় এই অভিনেতার জন্ম-মৃত্যুদিন। আজ ১৩ জুলাই দিলদারের ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী। আজও সিনেমাপাড়ায় তেমন কোনো আয়োজন চোখে পড়েনি তাকে নিয়ে। ২০০৩ সালের এই দিনে ৫৮ বছর বয়সে তিনি জীবনের মায়া কাটিয়ে চিরদিনের মতো পৃথিবী ত্যাগ করেন। এতগুলো বছর পেরিয়েও দর্শকের মনে দিলদার থেকে গেছেন অসংখ চলচ্চিত্রে তার দুর্দান্ত অভিনয়ে; কৌতুক অভিনেতার কিংবিদন্তি হয়ে। ১৯৪৫ সালের ১৩ জানুয়ারি চাঁদপুরে জন্মগ্রহণ করেন দিলদার। তিনি এসএসসি পাশ করার পর পড়াশোনার ইতি টানেন। ১৯৭২ সালে ‘কেন এমন হয়’ নামের চলচ্চিত্র দিয়ে অভিনয় জীবন শুরু করেন দিলদার। আর পেছনে ফিরে তাকাননি তিনি। অভিনয় করেছেন ‘বেদের মেয়ে জোসনা’ ‘বিক্ষোভ’, ‘অন্তরে অন্তরে’, ‘কন্যাদান’, ‘চাওয়া থেকে পাওয়া’, ‘সুন্দর আলীর জীবন সংসার’, ‘স্বপ্নের নায়ক’, ‘আনন্দ অশ্রু’, ‘শান্ত কেন মাস্তান’সহ অসংখ্য জনপ্রিয় সব চলচ্চিত্রে।

দিলদারের জনপ্রিয়তা এতটাই তুঙ্গে ছিল যে, তাকে নায়ক করে নির্মাণ করা হয়েছিল ‘আব্দুল্লাহ’ নামে একটি চলচ্চিত্র। নূতনের বিপরীতে এই ছবিতে বাজিমাত করেছিলেন তিনি। দারুণ জনপ্রিয়তা পেয়েছিলো ছবিতে ঠাঁই পাওয়া গানগুলো। সেরা কৌতুক অভিনেতা হিসেবে ২০০৩ সালে ‘তুমি শুধু আমার’ চলচ্চিত্রে অভিনয়ের সুবাদে তিনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারও লাভ করেন। জীবনভর অভিনয় করে যে বছর সেরার স্বীকৃতি পেলেন সে বছরই তিনি দেশ বিদেশে বাংলা ছবির কোটি কোটি দর্শককে শোক সাগরে ভাসিয়ে চলে গেলেন আর না ফেরার দেশে।

তার মৃত্যুর পর আরও অনেক কৌতুক অভিনেতাই এসেছেন, আবার সময়ের স্রোতে হারিয়েও গেছেন। কিন্তু কেউই দিলদারের অভাব পূরণ করতে পারেননি।