ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  অর্থনীতি   »   এবার কোরবানি ঈদে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীরা পুঁজি সঙ্কটের আশঙ্কা করছেন

এবার কোরবানি ঈদে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীরা পুঁজি সঙ্কটের আশঙ্কা করছেন

September 8, 2016 - 3:18 PM

রাজশাহী : এবার কোরবানি ঈদে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীরা পুঁজি সঙ্কটের আশঙ্কা করছেন। প্রত্যেক বছরই চামড়া ব্যবসায়ীরা থাকেন লাভের আশায়। কিন্তু এবার উল্টো চিত্র ঘটতে পারে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীদের। কেননা গত বছরের বকেয়া

টাকা তাদের এখনো পরিশোধ করেননি ট্যানারি মালিকরা। ফলে পুঁজি সঙ্কটে রয়েছেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। তাই এ বছর মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে প্রকৃত ব্যবসায়ীরা চামড়া কিনতে পারবেন কি-না তা নিয়েই দুশ্চিন্তায় তারা।

পাশাপাশি বাজারে বেড়েই চলেছে লবণের দাম, বাড়ছে চামড়া সংরক্ষণ ব্যয়, শ্রমিকের মজুরি এবং পরিবহন খরচও। এসব কারণে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীরা এবার হতাশায় ভুগছেন। তারা বলছেন, গত বছরের চামড়া বিক্রির টাকা তারা এখনো পর্যন্ত না পাওয়ায় কোরবানির ঈদ যেন ‘আপদ’ হয়ে উঠেছে তাদের কাছে।

নগরীর রেলগেট এলাকার চামড়া ব্যবসায়ী হাসান আলী জানান, কোরবানির ঈদে চামড়া কেনার জন্য গত বছর প্রতি বর্গফুট গরুর চামড়ার সরকার নির্ধারিত দাম ছিল ৭০ টাকা। কিন্তু ওই দিন মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে তাদের ৮০ থেকে ৯০ টাকা দরেও চামড়া কিনতে হয়েছে। পরবর্তীতে চামড়া বিক্রির পর এখনো পর্যন্ত তাদের বহু টাকা আটকে রেখেছে ট্যানারি মালিকরা। এতে কমে গেছে তাদের পুঁজি। আর অল্প পুঁজি নিয়ে তারা মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে টেক্কা দিতে পারবেন কি-না তা নিয়েই এখন তারা দুশ্চিন্তায়।

রাজশাহী জেলা চামড়া ব্যবসায়ী গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রউফ জানান, রাজশাহীতে প্রতি কোরবানি ঈদে প্রায় ৮০ হাজার গরু-মহিষ ও প্রায় দেড় লাখ ছাগল-ভেড়া কোরবানি হয়ে থাকে। এই বিপুল পরিমাণ চামড়া তারা কিনে কয়েকদিন সংরক্ষণের পর নাটোরের আড়তগুলোতে নিয়ে যান।

সেখান থেকে ঢাকার ট্যানারি মালিকরা তা কিনে নিয়ে যান। এসব চামড়ার প্রায় পুরোটাই তাদের বিক্রি করতে হয় বাকিতে। প্রতিবছর বিক্রির ছয় থেকে সাত মাসের মধ্যে ট্যানারি মালিকরা টাকা পরিশোধ করে দেন। কিন্তু এবার গত কোরবানি ঈদের চামড়ার প্রায় ৮০ ভাগ টাকা এখনো পরিশোধ করেননি ট্যানারি মালিকরা। ফলে এবার পুঁজি সঙ্কটই প্রকট হয়ে উঠেছে এখানকার ব্যবসায়ীদের কাছে।

সীমান্ত পথে চামড়া ভারতে পাচারের কোনো শঙ্কা আছে কিনা- জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত কয়েক বছর ধরে এ ধরনের শঙ্কা নেই। এবার বড় সঙ্কট হলো অর্থ। এ বছর অল্প পুঁজি নিয়ে মৌসুমি ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চামড়া কেনা প্রকৃত ব্যবসায়ীদের জন্য অনেক কঠিন হয়ে পড়বে। তাছাড়া লবণের দামও বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। বেড়েছে পরিবহন খরচ এবং শ্রমিকের মজুরি। বকেয়া আদায় না হওয়ায় চামড়া কিনতে রাজশাহীর ব্যবসায়ীদের এবার এমনিতেই হিমশিম খেতে হবে।

রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীদের এ সংগঠনটির সভাপতি আসাদুজ্জামান মাসুদ জানান, গত বছর এক বস্তা লবণের দাম ছিল ৬০০ টাকা। এ বছর কোরবানির ঈদের আগেই সিন্ডিকেট করে লবণের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। এখন এক বস্তা লবণের দাম এক হাজার ৩০০ টাকা। গত বছর একটি গরুর চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতেই তাদের ৩৫০ টাকা খরচ হয়েছে। এ বছর খরচ আরো বাড়বে। তারপরেও গত বছরের টাকা আটকে রেখেছেন ট্যানারি মালিকরা। ফলে টাকার অভাবে রাজশাহীর চামড়া ব্যবসায়ীরা এবার টালমাটাল অবস্থায় আছেন। গত ৫০ বছরেও তাদের এমন ‘আপদের’ মুখে পড়তে হয়নি।

তিনি বলেন, বকেয়া টাকা ঈদের আগেই পরিশোধ করার জন্য ট্যানারি মালিকদের বার বার অনুরোধ করা হয়েছে। তারা টাকা পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তবে শেষ পর্যন্ত তারা টাকা পরিশোধ না করলে মৌসুমি ব্যবসায়ী ও ফড়িয়াদের কাছে এবার হার মানবেন রাজশাহীর প্রকৃত ব্যবসায়ীরা। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হবেন চামড়া ব্যবসায়ীরা। আর অস্থিরতা দেখা দেবে চামড়া শিল্পে।

আপনার মতামত জানানঃ