করোনা ভাইরাস জীবনযুদ্ধ

সিরাজুল ইসলাম, লেখকঃ সারা বিশ্ব করোনা ভাইরাসের রোগীর সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে। এভাবে চলতে থাকলে বিশ্ব থেকে হারিয়ে যাবে অনেক মানুষ। হারিয়ে যেতে পারে সভ্যতা, ধংস হতে পারে বিশ্বের অর্থনৈতিক চালিকা শক্তি তার ঘাটতি শোধরিয়ে উঠতে সময় লাগবে কয়েকযুগ। এই মহামারী সময়ে আমাদের ভিতরের নৈতিক দিকগুলো অবশ্যই জাগ্রত করতে হবে। আমাদের পাশে অনেক করোনা রোগী রয়েছে যাদের প্রতি আমরা খেয়াল রাখিনা।

বসত ঘরে এমন অনেকে রয়েছেন যারা একা বসবাস করেন। তাদের বাজার সওদা করার মতো কেউ নেই, কিংবা হাসপাতালে পৌঁছে দেওয়ার মতো কেউ নেই, হয়তোবা কারোও কাছে সাহায্য চাওয়ার মতো তাদের কোন ভাষা নেই। এসময় মানুষগুলোর পাশে আমাদের অবশ্যই দাঁড়াতে হবে। মানুষের পাশে দাড়াবার এখনই সময়, নিজের নৈতিক মূল্যবোধ দিয়ে জয় করে নেব আমার আশপাশের অবহেলিত ও করোনাক্রান্ত মানুষের হৃদয়। অনাকাঙ্কিত এই করোনা ভাইরাসের কারনে আমাদের দেশে অনেক মানুষ দিনের পর দিন অনাহারে তাদের দিন কাটাচ্ছে, হারিয়েছে নিকট আত্মীয়, হারিয়েছে তাদের কর্ম, হারিয়েছে তাদের মূল্যবান সময়। করোনার সময়ে বেশি দূর্ভোগে পড়তে হয়েছে ছাত্র/ ছাত্রীদের।

তাদের ভবিষ্যৎ জীবন প্রায় অনিশ্চিত, ফলে অনেক ফুল অকালেই ঝড়ে পরে যাচ্ছে। দেশে অনেক মানুষের খাবার নেই, কর্ম নেই, কর্মহীন মানুষের বেঁচে থাকাটা স্বপ্ন ছাড়া আর কিছুই নয়। দেশের কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে যথাযথ গরীব ও মেহেনতী মানুষগন সাহায্য সহযোগীতা না পেয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। আগামীতে লকডাউনের সময়সীমা যদি আরও বৃদ্ধি পেতে থাকে তবে খাবার ও দারিদ্রতার কারণে মারা পড়বে হাজার হাজার মানুষ, বিষয়টি চিন্তাশীলদের জন্য অত্যন্ত জরুরী। গণসচেতনতা ব্যতিত আমদের এই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব নয়।

অবশ্যই আমাদের সামাজিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল কার্য সম্পাদন করতে হবে। নিয়মিত হাত ধোয়া, দূরত্ব বজায় রেখে চলা ফেরা করা, জামা কাপড় নিয়মিত ধৌত করা, দেশের সর্বত্র পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখা, গাছপালা আরও বেশি বেশি লাগিয়ে দেশেকে সবুজে সবুজে ভরে তুলতে হবে। সরকার যে সকল বিষয় নিষেধ করছেন এবং যে সকল বিষয় করার জন্য আদেশ করেছেন, তা যথা নিয়ম পালনের মাধ্যমে মুক্ত হতে পারবো অভিশপ্ত এই করোনা ভাইরাস থেকে।

এড. মোঃ সিরাজুল ইসলাম

লিগ্যাল এডভাইজার

ক্রাইম পেট্রোল বিডি

জজ কোর্ট ঢাকা

এপ্যার সুপ্রিম কোর্ট অফ বাংলাদেশ