কর্মচারিদের মধ্যে সংঘর্ষ তাজউদ্দীন মেডিক্যাল কলেজ বন্ধ ঘোষণা

কালীগঞ্জ (গাজীপুর) : গাজীপুরে শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভাংচুরের পর মঙ্গলবার দুপুরে শিক্ষার্থী ও আউট সোর্সিং কর্মচারিদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে সাতজন আহত হয়েছে।

এ পরিস্থিতিতে অনির্দিষ্টকালের জন্য শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিক্যাল কলেজ বন্ধ ঘোষণা করেছে কর্তৃপক্ষ। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মো. আসাদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মেডিক্যাল কলেজের শিক্ষার্থীরা হাসপাতালের অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনায় দীর্ঘ দিন ধরে ক্ষুব্ধ। দুপুরে এক ছাত্র তার মায়ের এক্স-রে করাতে হাসপাতালের এক্স-রে কক্ষে নিয়ে যান। কাগজে চিকিৎসকের স্বাক্ষর না থাকায় টেকনিশিয়ান এক্স-রে করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ছাত্র ফিরে আসেন। পরে ছাত্ররা জোট বেঁধে এক্স-রে কক্ষে গিয়ে ভাংচুর করেন। এ সময় সেখানে উপস্থিত আউট সোর্সিং কর্মচারিরা বাধা দিলে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি থেকে হাতাহাতি হয়।

এ সময় ছাত্ররা হাসপাতালের অনিয়ম, অব্যবস্থার প্রতিবাদ জানান এবং আউট সোর্সিং ঠিকাদারের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন। খবর পেয়ে জয়দেবপুর থানা পুলিশ হাসপাতালে গিয়ে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ছাত্র জানান, আউট সোর্সিং কর্মচারিদের দুর্ব্যবহারে তারা অতিষ্ঠ। ক্ষিপ্ত ছাত্ররা তাদের নানা অনিয়মের প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন।

কলেজের অধ্যক্ষ ডা. মো. আসাদ হোসেন জানান, সকালে আউট সোর্সিং কর্মচারি ও শিক্ষার্থীরা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল এলাকায় বিক্ষোভ করেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দুই পক্ষ মুখোমুখি হলে সংঘর্ষ বেধে যায়। এতে সাতজন আহত হয়। এ পরিস্থিতিতে মেডিক্যাল কলেজ অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। সন্ধ্যা ৬টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ত্যাগের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।