ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   ‘কারো কথা নিয়ে কথা বলা দুদকের কাজ নয়

‘কারো কথা নিয়ে কথা বলা দুদকের কাজ নয়

October 5, 2016 - 2:38 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : ‘কারো কথা নিয়ে কথা বলা দুদকের কাজ নয়। দুদকের কাজ সঠিক সময়ে সঠিক কাজ করা। আগামী ডিসেম্বর থেকে দুদকের কাজ আরো জোরদার করা হবে।’

বুধবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রধান কার্যালয়ে দুদকের আসামি গ্রেপ্তার অভিযান নিয়ে গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেনের মন্তব্যের বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন সংস্থাটির চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

প্রসঙ্গত, রাজধানীর মিনিস্টার অ্যাপার্টমেন্টে নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনকালে গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, দুদক কর্মকর্তারা সরকারি অফিসে গিয়ে হয়রানি করে। এটা কাম্য নয়। সরকারি কর্মকর্তাদের কাজে স্বাধীনতা দেওয়া উচিত। তবে যদি নির্দিষ্ট অভিযোগ থাকে তাহলে অভিযান পরিচালনা করা উচিত। অভিযানের কারণে যাতে হয়রানি না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

দুর্নীতি প্রতিরোধ সংক্রান্ত কার্যক্রমের সম্প্রসারণ ও গতিশীলতা আনয়নের লক্ষ্যে আজ দুদকের সহায়তায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছাত্রছাত্রীদের সমন্বয়ে গঠিত সততা সংঘ এবং বাংলাদেশ গার্লস গাইড অ্যাসোসিয়েশনের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতার সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়।

অনুষ্ঠানে দুদকের পক্ষে প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক (প্রতিরোধ ও গবেষণা) ড. মো. শামসুল আরেফিন ও বাংলাদেশ গার্লস গাইড অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে সংগঠনটির জাতীয় কমিশনার সৈয়দা রেহানা ইমাম এ সমঝোতা স্মারকে সই করেন।

অনুষ্ঠানে দুদকের মামলায় সাজার হার বেড়েছে, উল্লেখ করে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, দুদকের মামলায় বর্তমান সাজার হার ৪৯.৬৬ শতাংশ। গত বছর এই হার ছিল ৩৯ শতাংশ। ভবিষ্যতে আসামিদের সাজার হার আরো বাড়বে, সেই প্রত্যাশা নিয়েই কাজ করে যাচ্ছে দুদক।

তিনি আরো বলেন, দুদক দুর্নীতি দমনের পাশাপাশি দুর্নীতি প্রতিরোধের কাজেও গুরুত্ব দিচ্ছে।

দুর্নীতির বিরুদ্ধে জনসচেতনতা গড়ে তুলতে ইতিমধ্যে নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। দুর্নীতি প্রতিরোধ আন্দোলনে বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোকে সম্পৃক্ত করা হচ্ছে। এর অংশ হিসেবে বাংলাদেশ গার্লস গাইড অ্যাসোসিয়েশনের সঙ্গে সমঝোতা চুক্তি করা হলো। পর্যায়ক্রমে আরো সংগঠনের সঙ্গে এই চুক্তি করা হবে।

দুদক চেয়ারম্যান আরো বলেন, গত মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত দুদকে ৬ হাজার ৭২৯টি অভিযোগ জমা পড়েছে। দুদকের তফসিলভুক্ত না হওয়ায় ৫ হাজার ৮৫৮টি অভিযোগ গ্রহণ করা হয়নি। প্রাপ্ত অভিযোগের মধ্যে ৪৮২টি অভিযোগ গ্রহণ করা হয়। বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয় ৩৯০টি অভিযোগ। গণমাধ্যম থেকে সংগ্রহ করা ১৫২টি অভিযোগের মধ্যে ৪১টি অভিযোগ অনুসন্ধানের জন্য নেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ গার্লস গাইড অ্যাসোসিয়েশনের সৈয়দা রেহানা ইমাম বলেন, দুর্নীতি প্রতিরোধে দুদকের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করা হবে। দুর্নীতি কী, দুর্নীতি কী ধরনের ক্ষতি করে, সে বার্তা পৌঁছে দেওয়ার কাজ করা হবে।

বর্তমানে সারা দেশে গার্লস গাইডের ১০ লাখের বেশি সদস্য আছে।

সমঝোতা স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে দুদক কমিশনার এ এফ এম আমিনুল ইসলাম, সচিব আবু মো. মোস্তফা কামালসহ সংস্থাটিরর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আপনার মতামত জানানঃ