কোটি টাকার হাসি

রেজাউর রহমান চৌধুরীঃ এ ব্যস্ত নগরীতে যেন কেউ কারো নয়। কে রাখে কার খবর, কেউকি কোলে লয়। মানবসভ্যতার এত দূর এসেও কেন যেন মনে হয় মানুষের কোন মূল্য এ পৃথিবীতে কখনোই ছিল না। মূল্য থাকতে হলে তো মূল্যবোধ থাকা জরুরি।

সেই যাইহোক বলছিলাম অপলক চোখে তাকিয়ে থাকা সেই মায়া ময় ছবিটির কথা। তাকে তার নাম জিজ্ঞাসা করায় সে বলে উঠলো ‘ আপনারে কমু কেন? আপনে কি করেন? ওর মায়া মুখে যেন প্রশ্ন আর রাগ।

সেদিনটা ছিল মহা পবিত্র মাহে রমজান মাস। রোজার দিনে আমি অফিসের কাজে বাহিরে ছিলাম। তো কোথায় ইফতার করবো তা ভাবছিলাম। আশেপাশে খাবার বা যদি বলি ইফতারের বিশাল বিশাল সমাহার নিয়ে বসে আছেন অনেক দোকানি। ভাবলাম অফিসে পৌঁছাতে তো অনেক সময় লাগবে তো এখানেই ইফতার সেরে ফেরি।

হঠাৎ হাজারো ক্রেতার মাঝে একজন ক্রেতার দিকে আমার নজর পড়ল। গায়ে জামা-কাপড় অতটা পরিস্কার ছিলো না বলে অনেকে ওদের খাবার কিনতে দিচ্ছিল না, দোকানের লোকজন তাদের কিছু দিতে চাইলো না। তারা বার বার বলছে এই যাও, সরো এখান থেকে,পড়ে আসো।

হৃদয়ে চিরধরার মত ঘটনা কি ছিল জানেন?

ছোট ছেলেটির সাথে তার একটি ছোট বোন ছিল। এক হাতে কিছু টাকা আর অন্য হাতে বোনকে নিয়ে সে ইফতার কিনতে এসেছে। কথাবার্তায় ওস্তাত সে। আমি তাকে দূর থেকে ডাকলাম সে প্রথমে পাত্তা দিল না। কয়েকবার ডাকার পর মনে হল বিরক্ত হয়ে এসেছে।

আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম কি খাবে?

সে বলে উঠলো আমরা আপনারটা কেন খাবো আমাদের কাছে টাকা আছে। আমি বললাম ঠিক আছে, তোমার টাকায় কিনো কিন্তু আমি গিয়ে কিনে দেই?সে তাতেও রাজি নয়।

আমি তাকে প্রস্তাব করলাম তাহলে তোমার সাহায্য করি?

সে তার বোনের দিকে তাকিয়ে হেসে বললো, ঠিক আছে করেন, কিন্তু ইফতার কিন্তু আমিই কিনবো? আমি বললাম ঠিক আছে ভাই আমার।

আমি তাদের নিয়ে ইফতারের দোকানে গেলাম এবং ইফতার কিনতে সাহায্য করলাম। তারপর সে তার বোনকে নিয়ে চলে যেতে লাগলো, আমি আর তাকে আটকাইনি। তাকে দেখে মনে হচ্ছিল যে সে অনেক দিন ধরে এ দিন অপেক্ষায় ছিল, নিজে এভাবে ইফতার কিনে বাড়িতে যেতে চায়। যাবার সময় ইফতার হাতে নিয়ে সকলের দিকে চেয়ে একটি মিষ্টি হাসি দিচ্ছিলো। মনে হল তার মনের আশা পূরণ হয়েছে। রাস্তার মোরে গিয়ে আমার দিকে তাকিয়ে একটা হাসি দিয়ে চলে গেল। তখন যেন মনটা অপার এক শান্তিতে ভরে গেল। আজ হয়তো কোটি টাকা দিয়ে সেই হাসিটা ক্রয় করা আমার পক্ষে সম্ভব নয়।

একটি মানুষের হাসি আজ আমার কাছে শত কোটি টাকার চেয়ে বেশি মনে হয়েছে। সমাজে যারা বিলাসবহুল গাড়ি, বাড়ি বা অঢেল অর্থ আমার কাছে থাকুক না কেন। যত উচুতে যাইনা কেন সুখ সেই চিলেকোঠার মাঝেই লুকায়িত।

পুরো গল্পটি কাল্পনিক ছিল। মনের আবেগ দিয়ে কিছু কথা বলে চেষ্টা একারণেই যে, একটি মানুষের মূল্য আমার সমান। তার পেশা বা ধর্ম যাইহোক না কেন।

আপনার আশেপাশে এমন কোন ঘটনা আমাদের লিখে পাঠান এ ঠিকানায়ঃ
[email protected]

ভিজিট করুণঃ
crimepatrolbd.com