ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   কোস্টগার্ডের প্রাক্তন পরিচালক মোস্তাফিজুর গ্রেপ্তার

কোস্টগার্ডের প্রাক্তন পরিচালক মোস্তাফিজুর গ্রেপ্তার

October 24, 2016 - 9:04 AM

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের প্রাক্তন পরিচালক (পূর্ত) কমান্ডার (অবসরপ্রাপ্ত) মো. মোস্তাফিজুর রহমানকে গ্রেপ্তার করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির আওতায় বরাদ্দ দেওয়া ১১ হাজার মেট্রিক টন গম বিক্রির অর্থ আত্মসাতের মামলায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সোমবার সকালে সংস্থাটির পরিচালক এনামুল বাছিরের নেতৃত্বে দুদকের একটি দল রাজধানীর মহাখালীর ডিওএইচএসের নিজ বাসা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা প্রণব কুমার ভট্টাচার্য এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

১৮ বছর আগে ১৯৯৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরোর কর্মকর্তা সৈয়দ ইকবাল হোসেন ওই আত্মসাতের ঘটনায় রাজধানীর ক্যান্টনমেন্ট থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিলেন। মামলা দায়েরের পরপরই এ বিষয়ে উচ্চ আদালতে রিট করে আসামিরা। সম্প্রতি রিটের নিষ্পত্তি হওয়ায় আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন বিচারিক আদালত।

এই মামলার অন্য আসামিরা হলেন বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের প্রাক্তন মহাপরিচালক কমোডর শফিক-উর-রহমান, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার বি এন রাশেদ তানভীর, লেফটেন্যান্ট বিএন এম এস উদ্দিন ও সাব-লেফটেন্যান্ট আশরাফুল হক।

এর আগে গত ২৯ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের প্রাক্তন মহাপরিচালক কমোডর শফিক-উর-রহমানকে গ্রেপ্তার করে দুদক।

অভিযোগের বিষয়ে মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, গ্রামীণ অবকাঠামো সংস্কার কর্মসূচির আওতায় চট্টগ্রাম, মোংলা ও পটুয়াখালী অঞ্চলের বিভিন্ন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন সময়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় থেকে কোস্টগার্ডের অনুকূলে ১১ হাজার ১০০ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ দেওয়া হয়। কিন্তু কোস্টগার্ডের তৎকালীন মহাপরিচালক শফিক-উর-রহমান ওই গম বিক্রির জন্য একটি কমিটি গঠন করেন। কমিটি কতগুলো ভুয়া প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে কোটেশন নিয়ে নিজেদের ইচ্ছামতো ৫ টাকা কেজি হিসেবে ৫ কোটি ৫৫ লাখ টাকায় গম বিক্রি করে। অথচ ১৯৯৭-৯৮ অর্থবছর হিসেবে গমের বাজারমূল্য ছিল প্রতি কেজি ১১ টাকা ৬৪ পয়সা। যার মূল্য দাঁড়ায় ১২ কোটি ৯২ লাখ ৪ হাজার টাকা। এ ক্ষেত্রে সরকারের ৭ কোটি ৩৭ লাখ ৪ হাজার টাকা আত্মসাৎ করেছেন বলে তৎকালীন দুর্নীতি দমন ব্যুরোর কাছে প্রমাণ রয়েছে।

১৯৯৭ সালের ১ মে থেকে ১৯৯৮ সালের ৩০ এপ্রিল সময়ের মধ্যে অর্থ আত্মসাতের ঘটনা ঘটে বলে মামলার এজাহারে বলা হয়েছে।

আপনার মতামত জানানঃ