খুঁটিনাটি কনফেডারেশনস কাপের

ক্রীড়া ডেস্ক : ৮ দল নিয়ে গত ১৭ জুন রাশিয়ায় যাত্রা শুরু করে কনফেডারেশনস কাপ। গতরাতে প্রতিযোগিতার শিরোপা নির্ধারণ হয়। চিলিকে ১-০ গোলে হারিয়ে শ্রেষ্ঠত্বের মুকুট অর্জন করে জার্মানি।

প্রতিযোগিতার বিভিন্ন খুঁটিনাটি বিষয়গুলো তুলে ধরা হলো-

জার্মানির প্রথম : প্রথমবারের মতো কনফেডারেশনস কাপের শিরোপা অর্জন করে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি।

চিলির সুযোগ হাতছাড়া : প্রথমবারের মতো কনফেডারেশনস কাপের শিরোপা অর্জনের সুযোগ ছিল চিলির সামনে। কিন্তু নিজেদের ভুলে শিরোপা হাতছাড়া করে দলটি।

তৃতীয় পর্তুগাল : সেমিফাইনালে চিলির কাছে প্রতিযোগিতা থেকে বিদায় নেয় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী খেলায় মেক্সিকোকে হারিয়ে তৃতীয় হয়েছে পর্তুগাল।

ফাইনাল অব দ্য ম্যাচ : জার্মানির হয়ে জয়সূচক একমাত্র গোলটি করেন লার্স স্টিনডল। ম্যাচের ২০ মিনিটে জার্মানিকে এগিয়ে নেন এই ফরোয়ার্ড।

মোট গোল : টুর্নামেন্টে মোট ৪৩টি গোল হয়েছে।

টপ স্কোরার : জার্মানির তিন খেলোয়াড় তিনটি করে গোল করেছেন। লিয়ন গোরেটকা, লার্স স্টিনডল ও টিমো ওয়ের্নার তিনটি করে গোল করেন।

রোনালদোর দুই গোল : বিশ্বের অন্যতম সেরা খেলোয়াড় ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো টুর্নামেন্টে দুই গোল করেছেন। গোলে অ্যাসিস্ট করেছেন একটি।

সেরা খেলোয়াড় : প্রতিযোগিতার সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হয়েছেন জার্মানির জুলিয়ান ড্রাক্সলের।

সেরা গোলরক্ষক : প্রতিযোগিতার সেরা গোলরক্ষক চিলির অধিনায়ক ক্লাউডিও ব্রাভো।

ফেয়ার প্লে অ্যাওয়ার্ড : জার্মানি।

প্রাইজ মানি : প্রতিযোগিতার চ্যাম্পিয়ন দল পেয়েছে ৫০ লাখ ইউএস ডলার। রানার্স আপ চিলি পেয়েছে ৪৫ লাখ ডলার। তৃতীয় স্থানে থাকা পর্তুগাল পেয়েছে ৩৫ লাখ ডলার।

সব থেকে বড় জয় : নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ৪ গোল করে পর্তুগাল। টুর্নামেন্টের সবথেকে বড় জয় এটি।

সব থেকে বেশি ম্যান অব দ্য ম্যাচ : ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো গ্রুপ পর্বের তিন ম্যাচের তিনটিতেই ম্যাচসেরার পুরস্কার পেয়েছেন।

২০২১ সালে পরবর্তী কনফেডারেশনস কাপ : ২০২১ সালে কনফেডারেশনস কাপের পরবর্তী আসর বসবে। নিয়ম অনুযায়ী কাতারে বসার কথা রয়েছে এ আসরের। কারণ ফিফা বিশ্বকাপের আগের বছর কনফেডারেশনস কাপ আয়োজন হয় ওই দেশেই। ২০২২ সালে কাতারে বসবে ফিফা বিশ্বকাপ।