ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইম   »   গাংনীর আহত আবুল খায়ের মারা গেছেন

গাংনীর আহত আবুল খায়ের মারা গেছেন

October 3, 2016 - 2:45 PM

গাংনী : পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষের হাতে আহত আবুল খায়ের (৩৫) কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।
সোমবার (৩ অক্টোবর) ভোর রাত ৪ টার দিকে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। আবুল খায়ের থানাপাড়া এলাকার করিম মালিথার ছেলে ও গাংনী পৌর বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও পৌর সভার প্যানেল মেয়র ইনসারুল হক ইনসুর ছোট ভাই।
রবিবার (২ অক্টোবর) দিবাগত রাত ৯ টার দিকে তার বাড়ির পার্শে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গাছ ফেলে চলন্ত মোটরসাইকেলের থেকে ফেলে দিয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অংশে কুপিয়ে ও দুই পায়ের রগ কেটে দিয়ে মূমূর্ষ অবস্থায় ফেলে রেখে পালিয়ে যায় প্রতিপক্ষরা।
পরিবারের লোকজন মূমূর্ষ অবস্থায় আবুল খায়েরকে উদ্ধার করে প্রথমে গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্র ও পরে অবস্থার অবনতি হলে কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসক সেলিম উদ্দীন।
গাংনী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর জরুরী বিভাগে কর্মরত ডাক্তার সেলিম উদ্দীন জানান, আহত আবুল খায়ের এর দুই পায়ের রগ কাটা ও মাথার মাঝ খান দিয়ে হাড়সহ কেটে গেছে। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছিল।
আবুল খয়েরের বড় ভাই বিএনপি নেতা ইনসারুল হক ইন্সু জানান, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে গাংনী পৌর সভার ওলিপাড়া এলাকার বাবু ওরফে কানা বাবু, আকছার হোসেন ও তার ছেলে রিপন হোসেন, আব্দুস সোবহানসহ তার ক্যাডার বাহিনীর কয়েকজন ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথাড়ি কুপিয়ে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। এসময় তার ব্যবহৃত মটরসাইকেলটিও ভাংচুর করে তারা। তিনি আরো জানান, এর আগে হামলাকারীরা তার ইট ভাটায় চাঁদা দাবি করে আসছিল। চাঁদা দিতে না চওয়ায় তারা প্রতিনিয়ত হুমকি দিত।
গাংনী থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, হামলাকারীদের সাথে পূর্ব বিরোধের জের ধরে এ ঘটনা ঘটতে পারে। হামলার সাথে জড়িতদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

আপনার মতামত জানানঃ