ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  শিক্ষা   »   গাংনীর কাজিপুর কলেজে উন্মুক্তভাবেই চলছে উন্মুক্ত পরীক্ষা

গাংনীর কাজিপুর কলেজে উন্মুক্তভাবেই চলছে উন্মুক্ত পরীক্ষা

August 27, 2016 - 3:38 PM

মেহেরপুর প্রতিনিধিঃ মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার কাজিপুর ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে উন্মুক্তভাবেই চলছে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়াধীন এইচএসসি পরীক্ষা। সেখানে শিক্ষক-কর্মচারীদের সহায়তায় চলছে নকলের মহোৎসব। নকলের সুবিধা চালু থাকার সুবাদে উক্ত কলেজ অধ্যক্ষের নির্দেশে পরীক্ষার্থী প্রতি ৫’শ করে টাকা হাতিয়ে নেয়া হচ্ছে। এভাবে প্রতি বছর পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছ কলেজের কিছু অসাধু শিক্ষক কর্মচারীরা । প্রশাসনের নীরব ভূমিকা ও উদাসীনতার কারণেই অবৈধ এ অনৈতিক কর্মকান্ড দিন দিন বেড়ে চলেছে।
চলতি বছরের ২৬ আগষ্ট থেকে শুরু হয়েছে এইচএসসি পরীক্ষা । পরীক্ষার শুরু থেকেই কাজিপুর ডিগ্রী কলেজ কেন্দ্রে ব্যাপক হারে চলছে নকলের মহোৎসব। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে যেটুকু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা দায় সাড়া গোছের। পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে প্রশাসনের প্রতিনিধি হিসেবে মাঝে মধ্যে আসেন উপজেলা পরিষদের এক কর্তা ব্যক্তি। তিনি আসেন আর নাস্তা খেয়ে চলে যান। কাজের কাজ কিছুই হয় না।
তথ্য অনুসন্ধানে জানা গেছে, প্রতি শুক্রবার সকাল ৯টা থেকে ১২টা এবং দুপুর ২টা থেকে ৫টা পর্যন্ত চলে পরীক্ষা। প্রত্যেক পরীক্ষার্থী একটি করে গাইড বই সাথে নিয়ে হলে প্রবেশ করে। পরীক্ষা শুরু হবার সাথে সাথে পরীক্ষার্থীদের ১০/১৫ মিনিট সময় দেয়া হয় নকল বাছাই করার জন্য। পরীক্ষার্থীরা বাছাই করা নকলগুলো কাছে রেখে অবশিষ্ট বইয়ের অংশ ডিউটিরত পিয়নের কাছে ফেরত দেয়। পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে প্রশাসনের কেউ আসলে কিংবা বিশ্ববিদ্যালয়ের কোন প্রতিনিধি ভিজিটে আসলে অফিস থেকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রত্যেক রুমে ডিউটিরত শিক্ষকদের তা জানিয়ে আগে থেকেই সতর্ক করে দেয়া হয়। কর্তব্যরত শিক্ষকগণ পরীক্ষার্থীদের নিকট তা জানিয়ে দেন। ওই মুহূর্তে কিছুক্ষণের জন্য নকল বন্ধ থাকলেও ওনারা চলে যাবার পর আবার শুরু হয়ে যায় নকলের মহোৎসব। এভাবে উন্মুক্ত পরিবেশে পরীক্ষার্থীরা নকল করে পরীক্ষা দিয়ে আসছে। আর এ সুযোগের বিনিময়ে পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে নেয়া হচ্ছে জন প্রতি ৫’শ টাকা। প্রশাসন নির্বকার থাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠেছে এখানকার অসাধু শিক্ষক-কর্মচারীগণ।
কাজিপুর কলেজের অধ্যক্ষ মোকাদ্দেছুর রহমান বলেন, পরীক্ষার্থীরা একটু নকলের সুযোগ পেলেও তাদের কাছ থেকে কোন আর্থিক সুবিধা নেয়া হয়নি।
গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আরিফ উজ্জামান বলেন, আমার প্রতিনিধি হিসেবে বিআরডিবি কর্মকর্তা আব্দুল মান্নানকে সেখানে পাঠানো হয়।

আপনার মতামত জানানঃ