জেমস কোমির সঙ্গে গোপন কথোপকথনের কোনো রেকর্ড নেই আমার কাছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, ‘এফবিআইয়ের প্রাক্তন প্রধান জেমস কোমির সঙ্গে গোপন কথোপকথনের কোনো রেকর্ড নেই আমার কাছে।’

কোমির বক্তব্য গোপনে রেকর্ড করার ইঙ্গিত দিয়েছিলেন ট্রাম্প। যদি সেই রেকর্ডের কোনো টেপ থাকে, তাহলে তাকে তা জমা দিতে বলে কংগ্রেসের তদন্ত কমিটি। জমা দেওয়ার তারিখের একদিন আগের এক টুইটে ট্রাম্প বলেন, ‘আমি এমন কোনো রেকর্ডিং করিনি এবং আমার কাছে এমন কিছু নেইও।’

এফবিআইয়ের প্রাক্তন প্রধান জেমস কোমিকে মে মাসে বহিষ্কার করার পর একের এক টুইটে ট্রাম্প ইঙ্গিত দিয়েছেন, কোমির সঙ্গে আলাপনের রেকর্ড আছে তার কাছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বলছেন, না, কোনো রেকর্ড নেই।

জেমস কোমিকে বহিষ্কারের পর অভিযোগ ও গুঞ্জন ওঠে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ এবং ট্রাম্প টিমের সঙ্গে মস্কোর আঁতাতের বিষয়ে তদন্ত বাধাগ্রস্ত করতে তাকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে ট্রাম্পের উদ্দেশ্য যা-ই থাক, এসব অভিযোগ তদন্তে একজন বিশেষ পরামর্শককে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।

২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হ্যাকিংয়ের কিছু প্রমাণ রয়েছে মার্কিন গোয়েন্দাদের হাতে। যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ গোয়েন্দা সংস্থাগুলো এ বিষয়ে একমত, রাশিয়া থেকেই নির্বাচনে হ্যাকিং চালানো হয়েছে। আর এর উদ্দেশ্য ছিল, ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নির্বাচনে জয়ী করা। কিন্তু রাশিয়া এ অভিযোগ বরাবরই অস্বীকার করেছে।

এদিকে, ট্রাম্পের ক্ষমতা গ্রহণের কয়েক দিনের মাথায় তিনি তার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা মাইকেল ফ্লিনকে বহিষ্কার করেন। ফ্লিনের বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল- রুশ রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে রাশিয়ার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা নিয়ে কথোপকথনের বিষয়ে মিথ্যা তথ্য দিয়েছেন তিনি।

এ ছাড়া ট্রাম্পের কয়েকজন ঘনিষ্ট ব্যক্তি, যারা নির্বাচনের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন, তারা গোপনে রাশিয়ান কূটনীতিক ও কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে ট্রাম্পের দাবি, নির্বাচনের ফলাফল নিজের পক্ষে আনতে রাশিয়ার সঙ্গে তার ও তার টিমের কারোরই কোনো আঁতাত হয়নি।