ঝিনাইদহে তুচ্ছ ঘটনায় সংঘর্ষে আহত ১০

স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ ঝিনাইদহ সদর উপজেলার শালকুপা গ্রামে হাঁসে ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে দু’দল গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। এদের মধ্যে ৭ জনকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে এবং বাকিদের স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে গতরাত সাড়ে ৯ টার দিকে।

ঝিনাইদহের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আজবাহার আলী শেখ জানান, গত কয়েক দিন আগে জেলার সদর উপজেলার ঘোড়শাল ইউনিয়নের শালকুপা গ্রামের টিক্কা বিশ্বাসের হাঁস একই গ্রামের আশাদুলের ক্ষেতের ধান খায়। টিক্কা বিশ্বাস গ্রামের প্রভাশালী মাতব্বর ইদ্রীস আলীর সমর্থক এবং আশাদুল ইসলাম একই গ্রামের অপর মাতব্বর শহিদুল ইসলামের সমর্থক।

এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গেলরাত সাড়ে ৯টার দিকে উভয় দলের সমর্থকরা দেশীয় দা, লাঠি নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সংঘর্ষে উভয় দলের অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনাস্থলে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

শৈলকুপায় যে কারনে শিক্ষার্থীদের মহাসড়ক অবরোধ, গাড়ী ভাংচুর, এস,আইসহ তিন পুলিশ ও তিন শিক্ষার্থী আহত, পুলিশের ফাঁকা গুলি বর্ষণ, শিক্ষার্থীদের ক্লাস পরিক্ষা বর্জন
স্টাফ রিপোর্টার,ঝিনাইদহঃ
ঝিনাইদহের শৈলকুপার ভাটই বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ডিগ্রী কলেজ সরকারী করণ দাবীতে শিক্ষার্থীরা বৃহস্পতিবার সকালে খুলনা-কুষ্টিয়া মহাসড়ক অবরোধ করে। এ সময় তারা বেশ কয়েকটি গাড়ী ভাংচুর করে।
এক পর্যায়ে পুলিশ শিক্ষার্থী সংঘর্ষে শৈলকুপা থানার এসআই ইকবালসহ তিন পুলিশ ও তিন শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ ২১ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে। এদিকে আহতদের ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শিক্ষার্থীরা তাদের ইয়ার ফাইনাল পরিক্ষা বর্জন করে। তিন ঘন্টা পর শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে।

বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ আ,কা,ম মামুনুর রহমান জানান, দীর্ঘদিন ধরে ভাটই বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ডিগ্রী সরকারী করণের দাবী চলে আসছিলো। এ সংক্রান্ত ব্যাপারে কলেজ বরাবর প্রয়োজনীয় কাগজ আসলেও শিক্ষার্থীদের অভিযোগ অধ্যক্ষ তা গোপন করে। এতে করে ক্ষোভ দেখা যায় শিক্ষার্থীদের মধ্যে। বৃস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তারা খুলনা-কুষ্টিয়া মহাসড়কের ভাটই বাজারের রাস্তা অবরোধ করে।

শৈলকূপা থানা অফিসার ইনচার্জ তরিকুল ইসলাম জানান, প্রায় তিন ঘন্টাব্যাপী অবরোধ চলাকালে ব্যাপক যানজটের সৃষ্টি হয়। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে গেলে শিক্ষার্থীদের সাথে সংঘর্ষ বেধে যায়। গাড়ী ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে পুলিশ ফাকা গুলি বর্ষণ ও সামান্য লাঠি চার্জ করে। এসময় এসআই ইকবালসহ তিন পুলিশ ও তিন শিক্ষার্থী আহত হয়। তাদেরকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।