ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  ক্রাইমপ্রধান সংবাদ   »   দখল, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী, মাদকের রমরমা ব্যবসা নেপথ্যে মতি মোল্লা

দখল, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজী, মাদকের রমরমা ব্যবসা নেপথ্যে মতি মোল্লা

March 22, 2017 - 5:28 AM

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজধানী কাফরুলে প্রায় ২লক্ষ মানুষের বসবাস, এই এলাকার পূর্ব দিকে ঢাকা সেনানিবাস দক্ষিণ-পশ্চিম পাশে পুরাতন বিমানবন্দর উত্তরে পুলিশের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট কমান্ড সেন্টার ও পুলিশ স্টাফ কলেজ। সরকারী বেসরকারী বহু প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক এই এলাকায় ঢাকার স্থায়ী পুরাতন অনেক বাসিন্দা বসবাস করে থাকে যাদের অধিকাংশ পৈত্রিক সূত্রে এই এলাকার বাসিন্দা। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে অবকাঠামো বৃদ্ধি ও নামে বেনামে অনেক ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে। যাদের অধিকাংশই অস্থায়ী বাসিন্দা। এদেরকে জিম্মি করে ফায়দা লুটছে কিছু সন্ত্রাসী বাহিনী। যাদের নেতৃত্ব দিচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের ১৬নং ওয়ার্ড বিদ্রোহী কাউন্সিলর এক সময়কার ছিনতাইকারী, মাদক ব্যবসায়ী মতি মোল্লা। ৯১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসলে তৎকালীন যুবদল নেতা সৈয়দ আকরাম বাবুলের হাত ধরে রাজনীতিতে প্রবেশ করেন মতি মোল্লা। বিএনপি ক্ষমতায় থাকাকালীন সময়ে মাদক ব্যবসা, চুরি, ছিনতায়, চাঁদাবাজীর মাধ্যমে অঢেল সম্পদের মালিক বনে যান মতি মোল্লা। ৯৬ সালে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসার পরে তৎকালীন কাফরুলের শীর্ষ সন্ত্রাসী ইসমাইলের হাত ধরে আওয়ামীলীগের যোগদান করেন মতি মোল্লা। কাফরুল থানা বিএনপি নেতা সৈয়দ আকরামুল বাবুলের দীর্ঘদিনের সহচর মতি মোল্লা মনে প্রাণে কখনো আওয়ামীলীগের কর্মী হতে পারেনি। বিগত সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে আওয়ামীলীগ সভানেত্রীর বিপক্ষে নিজেকে কাউন্সিলর প্রার্থী ঘোষনা করে ১৬নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ এর সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে বহিষ্কার হন। সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পূর্বে আওয়ামীলীগ সভানেত্রীর মনোনীত প্রার্থী সাবেক সংরক্ষিত কাউন্সিলর মাহমুদা বেগম (কৃক) এর উপর বর্বরোচিত নগ্ন হামলা করে নির্বাচনে প্রচার প্রচারনা থেকে বিরত থাকতে তাকে বাধ্য করে। এমন কি নির্বাচনের দিন উত্তর কাফরুল উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে মতি মোল্লা ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর প্রধান হোতা ইসমাইলের নেতৃত্বে হামলা করে আহত করে। বিএনপি জামায়াতের সহযোগীতায় ও তাঁর ডান হাত ইসমাইলের সন্ত্রাষী বাহিনীর মাধ্যমে কেন্দ্র দখল করে কাউন্সিলর বনে যান। কাউন্সিলর হওয়ার পর থেকে এলাকায় ফুটপাত দখল, রাস্তায় বাজার বসানো, জুয়ার আড্ডা, মাদক স্পট, ফ্লাট বাড়িতে দেহ ব্যবসা এমন কোন অপরাধ নেই যা মতি মোল্লা করে না। অপরাধ জগতের সা¤্রাজ্য বিস্তৃত করার লক্ষে মাদক ব্যবসা, ছিনতাই, চাঁদাবাজিসহ ফুটপাত দখল করে দোকান বসিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে মতি মোল্লা। ইব্রাহিমপুর বক্সকালভার্ট এলাকায় ওয়াসার জায়গা দখল মতি মোল্লার নেতত্বে তাঁর আপন ভাতিজা কাফরুল থানার ছাত্রলীগ নেতা মোল্লা বাবু ও ইবাদুল্লা বাজার বসিয়ে প্রকাশ্যে চাঁদাবাজি করছে। দক্ষিণ কাফরুল, উত্তর কাফরুল, ইব্রাহিমপুর, কচুক্ষেত সহ ১৬নং ওয়ার্ডের বিভিন্ন মোড়ে রাস্তা দখল করে বাজার বসিয়ে কাউন্সিলরের নেতৃত্বে চাঁদাবাজী করছে ইসমাইল ও বি এন পি নেতা সৈয়দ আকরামুল বাবুলের লোকজন। ইব্রাহিমপুর বাজারের পিছনে, দক্ষিণ কাফরুল আইসক্রীম ফ্যাক্টরী এলাকায়, উত্তর কাফরুলে কাউন্সিলরের অন্যতম সহযোগী এজাহার ও তার ছেলে রাসেলের মাধ্যমে ইয়াবার বিশাল সা¤্রাজ্য গড়ে তুলেছে । মনিপুর স্কুল রোডে প্রকাশ্যে ইয়াবার ব্যবসা করছে মতি মোল্লার আশির্বাদপুষ্ট আবিদ ও আদনান। রাজউক অনুমোদন বিহীন ভবন নির্মানে সহযোগীতা, সিটি কর্পোরেশনের জায়গা দখল করে বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে সাধারণ মানুষের ভোগান্তি তুঙ্গে নিয়ে যেতে দ্বিধা করেনি এই কাউন্সিলর। গতকাল দক্ষিণ কাফরুলের সাধারণ মানুষ জানান রাস্তায় দাগ কেটে প্রশস্ত করার নামে বিভিন্ন বাড়ির মালিকের কাছে উৎকোচ দাবি করেছে মতি মোল্লা। দাবি না মানলে বাড়ি ঘর ভাংচুরের মাধ্যমে উচ্ছেদের হুমকি দেন । সর্বশেষ প্রিয়তি প্রপাটিজ লিঃ এর সাইন বোর্ড ঝুলিয়ে ৪৭৫-৭৬ দক্ষিণ কাফরুল আইসক্রীম ফ্যাক্টরী সংলগ্ন এলাকায় সাধারণ মানুষের একমাত্র চলাচলের রাস্তা দখল করে ৯তলা ভবন নির্মাণ করেছে। রাজউক নির্ধারিত নকশায় ভবনের সামনে রাস্তা ৩০ফুট থাকার কথা থাকলেও নির্মান প্রতিষ্ঠানের মালিক মোস্তাফিজুর রহমান সামনের সড়কের অর্ধেক দখল করে এ ভবনটি নির্মাণ করেছে। অথচ এই রাস্তাটি কাফরুল বাসীর শেওড়াপাড়া প্রধান সড়কে যাতাযাতের প্রধান মাধ্যম। মেট্রো রেল চালু হলে এই রাস্তাটির গুরুত্ব বহু গুন বেড়ে যাবে। রাস্তা দখল করে ভবন নির্মানে প্রতিবাদ করায় ঐ এলাকার বাসিন্দা মুকুল আমিন কে হুমকি ধমকিসহ তার প্রতিষ্ঠিত বঙ্গবন্ধু পাঠাগার ও পল্লীবন্ধু হোসাইন মোহাম্মদ এরশাদ প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন দোকান পাট ভাংচুর করে মতি মোল্লা ও তার সহযোগীরা উল্লেখ্য যে ভাংচুর করা স্কুল, পাঠাগার, দোকানের অপসারন ও নির্মানের উপর হাইকোর্টের স্থগিতাদেশ দেওয়া আছে। অনুমোদন বর্হিভ’ত ভাবে রাস্তা দখল করে ভবন নির্মানের ক্ষেত্রে রাজউক এর মতামত জানতে চাইলে কাফরুল এলাকার পরিদর্শক সালমা সুলতানা জানান গত ৮মাস পূর্বে সংশ্লিষ্ট নির্মান প্রতিষ্ঠানকে নোটিশ প্রদান করা হলেও কোন জবাব পাওয়া যায়নি। গত ১৭ই মার্চ পরিদর্শক সালমা সুলতানা সরজমিনে ঐ ভবন পরির্দশনে গেলে কাউন্সিলর মতি মোল্লা ও নির্মান প্রতিষ্ঠানের লোকজন তাকে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে হুমকি দেয় যে এই ভবনের আসে পাশে যেন না দেখি। সালমা সুলতানা বলেন প্রাণ নিয়ে পালিয়ে এসেছি। আমাদের কিছু করার নেই। কারণ ঐ ভবনের অংশিদার কাউন্সিলর মতি মোল্লা, আর মতি মোল্লা মানেই জমদূত। রাস্তা দখল করে ভবন নির্মান করার ব্যাপারে কাউন্সিলর মতি মোল্লাকে মোবাইল ফোনে মতামত জানতে চাইলে ভবন নির্মান সংক্রান্ত খবর প্রকাশ করলে সাংবাদিকদের হাত পা ভেঙ্গে দেওয়ার হুমকি দেন।

আপনার মতামত জানানঃ