ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আবু জাফরের কারসাজি। গাংনীর করমদী সন্ধানী হাসপাতাল চলছে অবৈধ ভাবে

দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আবু জাফরের কারসাজি। গাংনীর করমদী সন্ধানী হাসপাতাল চলছে অবৈধ ভাবে

October 13, 2016 - 11:15 AM

আল-আমীন,মেহেরপুর: মেহেরপুরের গাংনী উপজেলা দূর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আবু জাফর কর্তৃক পরিচালিত করমদী সন্ধানী হাসপাতাল চলছে অবৈধ ভাবে। এ হাসপাতালের কোন অনুমোদন না থাকলেও অজ্ঞাত ক্ষমতার দাপটে চালাচ্ছেন এ হাসপাতাল। জাপানী সাহায্য পরিচালিত এ হাসপাতাল টি দীর্ঘ একযুগেও বেশি সময় ধরে অবৈধ ভাবে চলে আসলেও কর্তৃপক্ষ নিরব দর্শকের ভুমিকা পালন করে আসছে। এ নিয়ে ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয়দের মধ্যে। পর্যান্ত ডাক্তার,নার্স ও জনবল না থাকলেও বহাল তবিয়তে চলছে এ হাসপাতাল। অনিয়মের বিষয় টি তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা। এদিকে ভুয়া ডাক্তার দিয়ে হাসপাতাল চালানোর ঘটনায় এলাকায় নানা সমালোচনা শুরু হয়েছে। ডাক্তারের সনদ না দেখে তাকে নিয়োগ দেওয়ার ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভুগীরা। অনিয়মের মাধ্যমে অনৈতিক সুবিধা নিয়ে তাকে নিয়োগ দেয়া হতে পারে এমন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্রই। তবে অনিয়ম ও অনৈতিক বিষয় টি সত্য নয় বলে দাবি করেছে আবু জাফর।
স্থানীয়রা জানান, উপজেলা দূর্নীতি দমন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি আবু জাফর দূর্নীতি প্রতিরোধে কাজ করলেও অবশেষে তিনিই অনিয়ম ও অবৈধ ভাবে সন্ধানী হাসপাতাল পরিচালনা করে আসছেন। এদিকে দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় ধরে ভুয়া চিকিৎসক দিয়ে চালিয়েছেন অবৈধ সন্ধানী হাসপাতাল।
গাংনী উপজেলা দূর্নীতি দমন প্রতিরোধ কমিটির সভাপতি ও সন্ধানী হাসপাতালের পরিচালক আবু জাফর জানান, সন্ধানী হাসপাতালের অনুমোদন নেই কিন্তু অনুমোদনের জন্য সিভিল সার্জন বরাবর আবেদন করা হয়েছে। দীর্ঘ একযুগেরও বেশি সময় হাসপাতাল চললেও এতদিন অনুমোদন নেয়া হয়নী কেন এমন প্রশ্নে কোন জবাব দেননী তিনি।
মেহেরপুরের সিভিল সার্জন আব্দুল হালিম জানান,সন্ধানী হাসপাতাল অনুমোদন নেওয়ার জন্য আবেদন করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে এ হাসপাতালের বর্তমানে কোন অনুমোদন নেই। সন্ধানী হাসপাতালে ভুয়া ডাক্তার সহ অন্য বিষয়ে অনিয়ম পেলে তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলায় বাঁশবাড়িয়া পশ্চিমএকটি অংশ মাঠ পাড়া রাস্তার বেহাল দশা।
আল-আমীন, মেহেরপুরঃ মেহেরপুর জেলার গাংনী উপজেলায় বাঁশবাড়িয়া গ্রামের পশ্চিম পাড়ার একটি অংশ মাঠ পাড়া নামে পরিচিত এই পাড়া লোকসংখ্যা প্রায় ৮০০ জন বাঁশবাড়িয়া গ্রামের অধিকাংশ কৃষকের আবাদের ফসল এই রাস্তা দিয়ে আনা নেওয়া করা হয়। কিন্ত দীর্ঘ দিন যাবত রাস্তাটি মেরামত না হওয়া এবং ব্রিক সলিং এ রুপান্তর না হওয়া খাল র্খন্দকে ভরে গেছে। মানুষ চলাচলের অনুউযোগি হয়ে পড়েছে।বৃষ্টি হলে কোন ভাবে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করা সম্ভব হয় না। গতকাল মঙ্গলবার দিনগত রাত্রীতে এই পাড়ার বাসিন্দা হাসেম আলী,বাড়ী ফেরার এই রাস্তা পড়ে গিয়ে মারাক্তক ভাবে আহত হয় বর্তমান চিকিৎসাধীন অবস্থা আছে। দুংখজন হলেও সত্য এ পাড়ার মাঝ খানে এন এস সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টিতে প্রতিদিন কমল মতি ছাত্র/ছাত্রী স্কুলে আসা যাওয়ার একটি মাত্র রাস্তা,সাম্যন বৃষ্টি হলে হাটু কাঁদাতে পরিনত হয়।বর্তমান রাস্তাটি দিয়ে কোন মানুষ সহ গাড়ী চলাফেরা করিতে পারিতেছে না।রাস্তাটি সাহারবাটি ইউপিতে ৪-কিঃমি আর ধানখোলা ইউপিতে ২.৫-কিঃমি তাই এলাকায় বাসীর প্রানের দাবী পৌরসভার নিকট হওয়া সও্যে আমরা গহিন অরন্যে বসবাস করিতেছি।এন এস সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান,এই রাস্তা দিয়ে জনসাধারন সহ কোন যানবহন চলাফেরা করিতে পারে না।৮নং ধানখোলা ইউপি চেয়ারম্যান আখেরুজ্জামান জানান,এই রাস্তা অবস্থা খুব খারাপ চেষ্টা করিতেছি কাজ করিবার জন্য।সাহারবাটি ইউপি চেয়ারম্যান ফারুক হোসেন জানান, কয় দিন হলো দ্বায়িত গ্রহন করা দেখি কি দিয়ে কি করা যায়।গাংনী উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) সাথে যোগাযোগ করিলে টেলিফোন পাওয়া যায় নি। গাংনী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আরিফ –উজ-জামান জানান , বিষয়টি আমার জানা ছিলো না দেখি দুরত কোন ব্যবস্থা নেয়া যায় কি না।

আপনার মতামত জানানঃ