ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   নিহত সাংবাদিক শিমুলের মাথার গুলির সঙ্গে পৌর মেয়র মিরুর শটগানের গুলির মিল রয়েছে

নিহত সাংবাদিক শিমুলের মাথার গুলির সঙ্গে পৌর মেয়র মিরুর শটগানের গুলির মিল রয়েছে

March 20, 2017 - 10:42 AM

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি : জেলার শাহজাদপুরে নিহত সাংবাদিক শিমুলের মাথায় বিদ্ধ গুলির সঙ্গে পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরুর শটগানের গুলির মিল রয়েছে।

আদালতে জমা দেওয়া পৌর মেয়রের শটগান ও সাংবাদিকের মাথায় বিদ্ধ গুলির লেডবলের ব্যালিস্টিক পরীক্ষার প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

শিমুল হত্যা মামলার রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট আবুল কাশেম মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি ব্যালিস্টিক প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে জানান, সাংবাদিক শিমুলের মরদেহের ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক দল তার মাথার ভেতর থেকে একটি গুলি (০.০৫ গ্রাম ওজনের সিসার বল) বের করেন।

গুলিটি মেয়র মিরুর শটগানের কি না তা নিশ্চিত হতে শাহজাদপুর থানা পুলিশ গত ৮ ফেব্রুয়ারি ঢাকার সিআইডিতে ব্যালিস্টিক পরীক্ষার জন্য পাঠান। ঢাকাস্থ সিআইডির ব্যালিস্টিক পরীক্ষা বিভাগ এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন শাহজাদপুর আমলি আদালতে জমা দিয়েছে।

ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, শাহজাদপুরের মেয়র মিরুর শটগানের গুলির সঙ্গে সাংবাদিক শিমুলের ময়নাতদন্তে পাওয়া গুলির লেডবলের (সিসার বল) মিল পাওয়া গেছে।

এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা শাহজাদপুর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম জানান, বিষয়টি মৌখিকভাবে জেনেছেন। তবে ব্যালিস্টিক রিপোর্টটি এখনো পাননি। তাই পুরোপুরি নিশ্চিত না হয়ে এ ব্যাপারে মন্তব্য করবেন না বলে জানান।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মনিরুল ইসলাম শাহজাদপুর আমলি আদালতের মাধ্যমে পৌর মেয়র মিরুর কাছ থেকে জব্দ করা তার লাইসেন্সকৃত বারো বোরের একটি শটগান, ওই শটগানের চারটি গুলি, ময়নাতদন্তে শিমুলের মাথার ভেতর থেকে পাওয়া একটি লেডবল ও একটি গুলির খোসা ঢাকার সিআইডিতে ব্যালিস্টিক পরীক্ষার জন্য পাঠান।

উল্লেখ্য, গত ২ ফেব্রুয়ারি শাহজাদপুরে দুগ্রুপের সংঘর্ষ চলাকালে গুলি ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষ চলাকালে দৈনিক সমকালের শাহজাদপুর উপজেলা প্রতিনিধি আব্দুল হাকিম শিমুল পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে গুলিবিদ্ধ হন। পরে শিমুল চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।

এই ঘটনায় ৪৩ জনকে আসামি করে শাহজাদপুর থানায় হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। মামলায় পৌর মেয়র হালিমুল হক মিরু, তার ভাই মিন্টু, প্রাক্তন কাউন্সিলর পিজুস, আওয়ামী লীগ নেতা নাসিরসহ ১৮ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরো ২৫ জনকে আসামি করা হয়। নিহত সাংবাদিক শিমুলের স্ত্রী নুরুন নাহার বাদী হয়ে ৩ ফেব্রুয়ারি রাতে মামলাটি দায়ের করেন।

আপনার মতামত জানানঃ