পলাশী থেকে ৭৫ দুই দিগন্তে একই সুর

মোক্তার হোসেন সরকার: বিশ্বাস কর ভাইসব, শুধু তারই জন্য যৌবনের দুর্নিবার আকর্ষণকে উপেক্ষা করে বাংলা-বিহার-উড়িষ্যার পথে প্রান্তরে, সমরক্ষেত্রে উল্কার মত ছুটে বেরিয়েছি। আজ থেকে প্রায় ২৬৫ বছর আগে ১৭৫৭ সালে পলাশীর যুদ্ধে বিশ্বাসঘাতক সেনাপতি এবং অমাত্যবর্গের হিংসার ফলে এক প্রহসনের যুদ্ধে পরাজিত নবাব সিরাজুদ্দৌলার গভীর মর্মবেদনার বহিঃপ্রকাশ এমনই ছিল বলে নাট্যকার গিরিশচন্দ্র তাঁর লেখা এক নাটকে বলেছেন।

সেই দিন থেকে প্রায় ২১৪ বছর পর ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ হারান সেই স্বাধীনতা পূণরুদ্ধারের জন্য সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান রেসকোর্স ময়দানে উপস্থিত লাখ মুক্তিকামী মানুষকে শোনালেন অমর এক মহাকাব্য “আর যদি একটা গুলি চলে, আর যদি আমার একটা মানুষকেও হত্যা করা হয় তাহলে তোমাদের যার যা আছে তাই নিয়ে প্রস্তুত থেকো”!
ভাবলে কি কাকতালীয় মনে হয় যে, ২৩ জুন পলাশীর প্রান্তরে যে দিন বাংলার স্বাধীনতা হারালো; ঠিক একই তারিখে বর্বর পাকিস্তানী শোষকদের হাত থেকে এদেশকে বাঁচানোর জন্য আওয়ামী লীগ নামক একটি রাজনৈতিক সংগঠনের জন্ম!

এটা কি কাকতালীয় নাকি সেই মহাণ মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক শেখ মুজিবর রহমান যে সুপরিকল্পিত ভাবে তা করেননি, একথা হলফ করে বলার জো কি আছে! বাংলার সেই অবিসম্বাদিত নেতৃদ্বয় সিরাজ ও মুজিব।একজন হারালো, আরেকজন তাঁর মোহন বাঁশীর সুরে মুক্তিপাগল এক জাতিকে নিয়ে জীবন-মরণ যুদ্ধে জয়ী হলেন। যুদ্ধ মানেই ধ্বংস, যুদ্ধ মানেই মৃত্যু যুদ্ধ মানেই হাহাকার! সেই মহাণ বংশীবাদকের সুরে মুক্তিপাগল বাঙ্গালী জয়ী হল। কিন্তু বিনিময়ে হারালো দেশমাতৃকা ৩০ লাখ আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা, আর মান-সম্ভ্রম হারালো ২ লাখ জায়া-জননী-ভগ্নি! সিরাজের পরাজয়ের কারনে শুধু বাংলাই নয়, ধীরে ধীরে সমগ্র উপমহাদেশ চলে গেল বে-হায়া বৃটিশ ‘ইষ্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী’ নামের একটা বানিজ্যিক কোম্পানীর কাছে।

তার পর কত দেশপ্রেমিক কত নর-নারী যে স্বাধীনতা সংগ্রাম করে প্রাণ দিয়েছেন তার সঠিক হিসাব কোথাও নেই। অবিভক্ত ভারতের আরেক মহান যোদ্ধা সুভাষ চন্দ্র বসু গঠন করেছিলেন ‘আজাদ হিন্দ ফৌজ’। স্বাধীনতার পতাকাও তুলেছিলেন কোথাও কোথাও। কিন্তু রাজনীতির নিষ্ঠুর পেষনে সেই প্রিয় নেতাজী সুভাস চন্দ্র বসু রহস্যজনক ভাবে সেই যে হারিয়ে গেলেন, সে ঘটনা আজও রহস্যেই রয়ে গেছে। শেষে ১৯৪৭ সালে দেড় হজার মাইল দূরের সোনার পূর্ব বাংলাকে জড়িয়ে এক অবাস্তব স্বাধীনতা পেল পেল পাকিস্তান নামক একটি ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র! যার কর্নধর রাষ্ট্রের সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাষাভাষীদের প্রানের মাতৃভাষা বাংলাকে অবজ্ঞায় উড়িয়ে দিয়ে উর্দু ভাষাকে রাষ্ট্র ভাষার ঘোষণা দিলে গর্জে উঠেছিল এদেশের সূর্য সন্তানেরা, যার সম্মুখে ছিল সেই অমর বংশীবাদক শেখ মুজিবর রহমান!

সেই থেকেই বাঙ্গালীরা পাক শাসকদের অভিপ্রায় বুঝতে শুরু করল আর সংগঠিত হতে থাকল। অন্যদিকে বাঙ্গালীদের দমন -পীড়নের মাত্রা ক্রমেই বেড়েই চলল। সমগ্র জাতির পিঠ যখন ঠেকেছে দেয়ালে, তখন সেই বীরপুরুষ মুজিব দৃপ্তকন্ঠে ঘোষণা করলেন “রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরও দেব এদেশকে মুক্ত করে ছাড়ব ইনশাল্লাহ”। হ্যা,ঁ তাঁর নেতৃত্বেই স্বাধীন হলো দেশ।রুদ্ধ কারার কপাট খুলে তিনি স্বাধীন বাংলায় ফিরলেন। দেশের মাটিতে নেমে সোনার বাংলার ধুলো মাথায় নিয়ে ধন্য হলেন। তিনি কাঁদলেন আবারও কাঁদালেন সকলকে। জাতীয় সকল নেতার আমন্ত্রণ ও অনুরোধে তিনি স্কন্ধে তুলে নিলেন এক ভগ্নস্তুুপকে পূনঃগঠনের বিশাল গুরুদায়িত্ব। কিন্তু সেই গদীকে ঘিরে চরম ষড়ষন্ত্র করে বিশ্বাস ঘাতকেরা মাকড়সার পাতানো জালের মতই পাতলো এক ফাঁদ।

এদিকে প্রশাসনের শীর্ষে রয়ে গেল পাক সরকারের সেই ঝানু দূর্নীতিবাজ আমলারা। নেতা চেয়েছিলেন উপরে অনেক রদ বদলের।কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীরা এই বলে বাঁধা দিল যে প্রশাসনের শীর্ষে রদবদল করলে অনভিজ্ঞ
আমলারা প্রশাসন চালাতে পারবে না। অনেকটা অনিচ্ছায় তিনি ছাটাই করলেন না। আর একদিকে চেয়েছিলেন মিলিশিয়া বাহিনী তৈরী করতে।কিন্তু শেষ পর্যন্ত তা করতে না পারায় শত্রæদের চালাকি বুঝতে পেরে গঠন করেছিলেন রক্ষীবহিনী। বিশ্বাসঘাতকদের বেড়া জালের মধ্যেই চলতে থাকল দেশ পুনর্গঠনের কাজ।

একটু ফিরে যাই পলাশীতে। প্রধান সেনাপতি ও ফুফা মীরজাফর আলী খান, জগৎশেঠ, আমির চান্দ, রায় দূর্লভ প্রমুখ ক্ষমতাধর রাজন্যবর্গের বিশ্বাস ঘাতকতায় পুতুলের মত লাখ সৈন্যকে নিস্ক্রিয় করে পরাজিত নবাব সেনাপতি মীর কাশেমের হাতে বন্দী হয়ে কারাগারে অবস্থান করেন। কারও মতে ক্লাইভের পিস্তলের গুলিতে, কারও মতে মীরনের গুলিতে, কারও মতে উন্মুক্ত ময়দানে পাগলা হাতীর পদদলিত হয়ে। আবার কারও মতে নবাবের স্নেহধন্য্য মুহম্মদী বেগের ছুরিকাঘাতে। যে ভাবেই হোক তাঁকে নির্মম ভাবে হত্যা করা হয়েছিল বিনাবিচারে। দশজন সাধারণ নাগরিকের মৌলিক অধিকারও পাননি তিনি।

শুধু কি সেখানেই শেষ! না। তাঁর পরিবারের প্রায় সকলকে হত্যা করা হয়েছিল নির্মম ভাবে। তবে ভাববার বিষয় রবার্ট ক্লাইভ সহ সকল বিশ্বাস ঘাতকদের মৃত্যুও হয়েছিল করুণ ভাবে।নবাবকে সমাধীস্থ করা হয়েছিল অতি সাধারণ ভাবে। তাঁর পরিবার বর্গকেও করব দেয়া হয় সাদামাটা ভাবে। আজও তা অবহেলিত অরক্ষিত বলেই অনেক পর্যটক মন্তব্য করেন। অপরদিকে বিশ্বাসঘাতক মীরজাফর আলী খাঁর কবর মর্মর পাথরে আচ্ছাদিত! তার পাশে তার বংশের দেড় হাজার জনের কবরও দামী পাথরে আবৃত নজর কাড়া! হতভাগ্য নবাব সিরাজুদ্দৌলা শান্তিতে ঘুমাক!

আসুন ফিরে যাই স্বাধীন বাংলাদেশে। অক্লান্ত পরিশ্রমেও এতটুকু ক্লান্তি বোধ করেননি স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান। দেশের আনাচে-কানাচে আর বহির্বিশ্বে। দেশের নিজ ধাঁচে গড়া পদ্ধতিতে
তিনি বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ম‚ল চারটি নীতির মধ্যে সমাজতন্ত্রের উত্তরনের জন্য গঠন করেছিলেন “বাকশাল”-বাংলাদেশ কৃষক-শ্রমিকলীগ। এটাই অপরাধ। কারণ বাকশাল কায়েম হলে একটি দলেরই নয়, দেশের সকল পেশার মানুষই অন্তর্ভুক্ত হতো দেশ পরিচালনার দায়িত্বে। এছাড়াও যদৃচ্ছাচার দ‚র্নীতি স্বজনপ্রীতি ইত্যাদি বিষয়ে কঠোর অবস্থান গ্রহন ইত্যাদি কারনে গৃহশত্রæরা গোপন বৈঠকের পর বৈঠক করে ঠিক করে অবশেষে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা। কারন তারা বুঝেছিল যে, তাঁকে মেরে ফেলতে না পারলে জনভোটে তাঁকে কোনদিনও হারানো যাবে না।

ষড়যন্ত্রের জাল বিছালো অন্দরে বাহিরে। বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর ছদ্মাবরনে আবৃত খন্দকার মোশতাক সাহস জোগালো ৭১-র পরাজিত শত্রæদের। তারাও স্বদেশ ও বিদেশে যোগসাজশ করে অর্বাচীন কিছু বিভ্রান্ত সৈনিক দ্বারা গোলা শুন্য কয়েকটা ট্যাংক দিয়ে শহরে ত্রাসের সৃষ্টি করে। কয়েকজন মেজর কিছু সিপাহী নিয়ে ৩২ নম্বরে রাষ্ট্রপতির বাসভবন ঘিরে ফেলে বাঙ্গালীর চির উন্নতশির মহান নেতা মুজিবকে স্ব-পরিবারে নির্মম ভাবে হত্যা করে এক পৈশাচিক আনন্দ-উল্লাসে শহর প্রদক্ষিন করল। যে জল্লাদের হাতে রেহাই পায়নি নিষ্পাপ শিশু রাসেল পর্যন্ত!

ঠিক পলাশীর প্রান্তরে যেমন মীরজাফরদের অনুগত লাখ সৈন্য পুতুলের মত দাঁড়িয়ে ছিল এখানেও কোন জেনারেল এমনকি সেনাপ্রধান সফিউল্লাহও টু শব্দটিও করেননি। সাত সকালে বেতার-টিভিতে প্রতিদিন যাঁর বজ্রকন্ঠ প্রচারের মাধ্যমে শুরু হতো অনুষ্ঠানমালা। সেই প্রচার মাধ্যম প্রচার করতে থাকল এমন সব খারাপ ভাষা যার একটিও উচ্চারণ করতে ঘৃনা এবং নিদারুণ কষ্ট হয়। একসঙ্গে তিনব্যক্তির উপস্থিতি পর্যন্ত হলো নিষিদ্ধ। মেজর জিয়াকে কোন জুনিয়ার অফিসার প্রেসিডেন্টকে হত্যার খবরে দিলে নির্লিপ্ত জবাব দেয় “সো হোয়াট, ভাইস-প্রেসিডেন্ট ইজ দেয়ার”। আর বিকেল না গড়াতেই তিন বহিনী প্রধান আনুগত্য স্বীকার করে নিয়েছিল অবলীলায়! কি পরিতাপ!

নিহত প্রেসিডেন্টকে তাঁর গ্রামের বাড়িতে নেয়া হয় হেলিকপ্টারে। সেখানে তাঁকে গোসল করানো হয় তিব্বত কোম্পানীর কাপড় কাঁচা সাবান দিয়ে! সমাধী ঘিরে রাখল সৈন্য। অসহায় ভাবে কেঁদে বুক ভাষালো দেশবাসী। সবই একই সুত্রে গাঁথা! পলাশীতে মীরজাফরের বিশ্বাস ঘাতকতা, ৭৫এ সেনাপ্রধানের নীরবতা, নবাব পরিরারের সদস্যদের নানা কৌশলে হত্যা, মুজিব পরিবারকে নির্মম হত্যা, নবাবকে যেনতেন ভবে সমাধী, মুজিবকে ৫৭০ সাবান দিয়ে গোসল করিয়ে সমাধী, নবাবের কবর অযতœ অবহেলা, মেজর জিয়ার কবর কমপ্লেক্স করা, হাসিনা দেশে ফিরতে না পারলে জাতির জনকের কবরকে হয়তোবা করত অচেনা! পলাশীর আম্রকানন যুদ্ধে নবাবের পরাজয়, পক্ষান্তরে মেহেরপুরের আম্রকানন স্বাধীন বাংলাদেশ সরকারের শপথ গ্রহণ! সাধারণ ভাবে ভাবলেই পলাশী থেকে পঁচাত্তর দুই দিগন্তে একই সুর! আকাশে বাতাসে একই করুণ ক্রন্দন ধ্বনি! কিন্তু সে ক্রন্দন সবাই শোনে না। বুঝতে না দেবার জন্য উঠে পড়ে লেগে আছেন একদল দারুণ বুদ্ধিজীবি। এখানেও ষড়যন্ত্র! এই ষড়যন্ত্রের কারনে ফলেই দুই বাংলার বুকে গড়ে উঠেছে কাঁটাতারের বেড়া। ক্রমেই যাতে ধীরে ধীরে বাঙ্গালীর হৃদয় থেকে মুছে যায় আমরা সবাই বাঙ্গালী! পরিবর্তে পরিচয়ের বিস্তৃতি ঘটে হিন্দু-মুসলমানের। তাই সুযোগ পেয়ে পলাশী থেকে ৭১ পর্যন্ত বিশ্বাসঘাতক মীরজাফর-মোশতাক গং পালন করে পলাশী দিবস! ছড়িয়ে দেয়ার সুযোগ পায় মৌলবাদী মতবাদ!

হ্যাঁ পরিতাপ, আমরা ভুলে কি ভুলে গেলাম কবিগুরুর অমর বানী শক, হুণ, মোঘল,পাঠান কত জাতিই না মিশে আছে এই ভারতের মহামানবের সাগর তীরে! কত ভাষা-সংস্কৃতির লোকের বসবাস এই বাংলার বুকে।
সিরাজকে বলা হয় অবাঙ্গালী। তাঁর পরিবারের ভাষা বিদেশী! অনেক সভা সেমিনারে আমরা সিরাজদ্দৌলাকে তুলনা করি। কিন্তু আমরা কেন ভুলে যাই যে, নবাব সিরাজুদ্দৌলার জন্ম হয়েছিল এই বাংলায়। জন্মগত আইনে সিরাজ বাঙ্গালি। আমাদের আইন তাঁকে বাঙ্গালী স্বীকৃতি দেয় নাকি!

আর একটা প্রশ্ন বোধহয় করা চলে যে, বাংলাদেশে অনেক সম্ভ্রান্ত পরিবার রয়েছে, যার অন্দরে সবাই ইংরেজি বলে। তারা কি অবাঙ্গালী হয়েছে! অন্তত ২০ টা নৃ-গোষ্ঠীর একটাই পরিচয় সবাই বাঙ্গালী। বিশাল ভারতের শতাধিক নৃ-গোষ্ঠীর পরিচয় ভারতীয়। কিন্তু বেদনা আজও লুকিয়ে থাকা মীরজাফরদের প্রেতাত্মারা তা আমাদের বুঝতে না দিয়ে ঘোর চক্রান্তে আমাদের ঘোলা জলে ডুবিয়ে রেখেছে।

আজ হতভাগ্য নবাব সিরাজের মতই বলতে ইচ্ছে করে বিশ্বাস কর ভাইসব, বাংলার ভাগ্যাকাশে আজ দ‚র্যোগের ঘনঘটা, স্বাধীনতার পতাকা খাবলে ধরেছে শকুনের দল। ৫০ বছরেও স্বীকৃতি পায়নি বীরাঙ্গনা ললিতা, আষাঢ়-শ্রাবণধারা বৃদ্ধ মুক্তিযোদ্ধা পিতার চোখে-আজও একটা চাকরী জোটেনি তার শিক্ষিত ছেলেটার কপালে। বাড়ীর পাশের স্কুলটার ক্লাশ শুরুর আগে আমার সোনার বাংলা জাতীয় সঙ্গীত শুনে সখিনার বুকের ভেতরটা মুষড়ে উঠে; তার ছোট্ট লক্ষী ভাইটা সেই যে যুদ্ধে গেছে এখনও ফিরে আসেনি! সাগরিকার চোখে জল, তাকে ধর্ষনের কথা কাউকে বলতে পারেনি আজও। ঊর্মিলা চলে গেছে ওপাড় বাঙ্গলার শিলিগুড়ির পতিতালয়ে! সে এখন অচল মাল! তার স্থলাভীসিক্ত হয়েছে কণ্যা অনিতা। চা বাগানের শ্রমিকের যৌন-লালসা মেটায় দাঁতে দাঁত চেপে!

ভাইসব, এসব দুঃখ,বেদনা, লাঞ্ছনা গঞ্জনা বুকে ধরে এদেশটাকে গড়ে তুলে স্বাধীনতা রক্ষার দায়ভার কি শুধুই জননেত্রী শেখ হাসিনা আর তাঁর ক’জন সহচরেরই মাত্র! আমি আর পারছিনা। তোমরা জেগে ওঠো। আমায় ক্ষমা কর। জয়-বাংলা!

লেখক-মফস্বল সাংবাদিক