ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  আইন-আদালত   »   প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিশিষ্ট ব্যক্তিরা

প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিশিষ্ট ব্যক্তিরা

December 31, 2016 - 1:09 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব আইন-২০১৬ এর বিভিন্ন ধারা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

শনিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে এক নাগরিক সভায় তারা এ আইনের বিভিন্ন ধারার সমালোচনা করেন।

সাতটি সংগঠন ‘বিদ্যমান নাগরিকত্ব আইনে নাগরিক অধিকার ও প্রস্তাবিত নাগরিকত্ব আইন-২০১৬’ শীর্ষক এ নাগরিক সভার আয়োজন করে।

সভায় বিশিষ্টজনরা বলেন, প্রস্তাবিত আইনের ৩ ধারায় বলা হয়েছে, অন্য কোনো আইন বা আদালতের রায়ে যাহা কিছু থাকুক না কেন, এই আইনের বিধানাবলী প্রাধান্য পাবে। আইনের এ ধারাটি সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

আইনের ৪ ধারায় বলা হয়েছে, বাংলাদেশে জন্মগ্রহণকারী প্রত্যেক ব্যক্তি জন্মসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিক হবেন, যদি তার পিতা-মাতা এ আইন বলবৎ হইবার তারিখে বা উহার পরে অথবা ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ হইতে এই আইন বলবৎ হইবার অব্যবহিত পূর্ব পর্যন্ত সময়ের মধ্যে জন্মসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিক হন বা থাকেন।

বক্তরা প্রশ্ন তোলেন, অনেক মুক্তিযোদ্ধা আছেন যারা বাংলাদেশের নাগরিকত্ব না নিয়ে লন্ডন-আমেরিকায় চলে গেছেন। যদি এ আইন পাশ হয় তাহলে তাদের এবং তাদের ছেলে-মেয়ের কী হবে?

এ রকম আইনের ৫ ধারায় বংশসূত্রে নাগরিকত্ব, ৬ ধারায় প্রবাসীদের নাগরিকত্ব, ৭ ধারায় প্রবাসীদের নাগরিকত্বের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা, ১১ ধারায় বৈবাহিক সূত্রে নাগরিকত্ব, ১২ ধারায় ভূখণ্ড সংযোজনসূত্রে নাগরিকত্ব, ১৮ ধারায় নাগরিকত্বের অযোগ্যতা, ২০ ধারায় নাগরিকত্ব বাতিল প্রভৃতি বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়। এ ছাড়াও অন্যান্য আইনের মতো এ আইনে মুখবন্ধ দেওয়া হয়নি।

আলোচনা সভায় বক্তারা আইনের সব সমস্যা তুলে ধরে স্বরাষ্ট্র ও আইন মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি দেওয়ার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেন।

নাগরিকত্ব আইন ও অধিকার মোর্চার এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রাক্তন উপদেষ্টা এম হাফিজ উদ্দিন খান, সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক ড. বদিউল আলম মজুমদার, প্রাক্তন সংসদ সদস্য এস এম আকরাম, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক ব্যারিস্টার নজরুল খসরু, ব্যারিস্টার সারা হোসেন, ব্যারিস্টার জ্যের্তিময় বড়ুয়া ও নারীপক্ষের ফরিদা ইয়াসমিন। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক অধ্যাপক ড. সি আর আবরার।

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত সাপ্তাহিক সভায় বাংলাদেশ নাগরিকত্ব আইন-২০১৬ অনুমোদন দেওয়া হয়।

আপনার মতামত জানানঃ