ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   মেহেরপুরের গাংনীতে বাল্য বিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসন অসহায় !

মেহেরপুরের গাংনীতে বাল্য বিবাহ রোধে উপজেলা প্রশাসন অসহায় !

October 23, 2016 - 1:34 PM

বুরো প্রধান মেহেরপুর:গায়ের জোরে বাল্য বিয়ে দিয়ে দাম্ভিকতা দেখালেন মেহেরপুর গাংনী উপজেলার তেরাইল গ্রামের ইউপি সদস্য।জোরপুর্বক বিয়ে দিলেও এলাকায় সন্ত্রাসী হিসেবে পরিচিতি ভয়ে নিরবতা পালন করতে বাধ্য হচ্ছে বরের পরিবার।
জানা গেছে, শুক্রবার বিকেলে ভরাট গ্রামের জুলফিকার আলীর মেয়ে সীমা খাতুন বিয়ের দাবিতে দুর্লভপুর গ্র্মের এখলাছুর রহমানের বাড়িতে ওঠে।দীর্ঘদিন ধরেই তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক বলে দাবি করে সীমা খাতুন।এখলাছের পরিবার সীমাকে বাড়ি থেকে সরিয়ে দিতে ব্যর্থ হয়।এভাবে বিয়ে না করে উভয় পরিবারের মধ্যে আলাপ-আলোচনা করে পরবর্তীতে বিয়ে করবে বলে মত প্রকাশ করেন এখলাছ। কিন্তু কোন অনুরোধই কাজে আসেনি। শুক্রবার রাতে তেরাইল গ্রামের সেই মেম্বর ও ভরাট গ্রামের জিয়ার অবৈধ হস্তক্ষেপ সীমাকে বিয়ে করতে বাধ্য হয় এখলাছ। বর্তমানে এখলাছের বউ হিসেবে তার বাড়িতেই রয়েছেন সীমা।
সীমা খাতুন গত বছর বিটিডি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এস.এস.সি পরীক্ষা দিয়ে অকৃতকার্য হয়। সে হিসেবে তার বিয়ের পুর্ণ বয়স হয়নি। তারপরেও জোরপুর্বক বিয়ে দেয়ায় গ্রামের মানুষের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে।
এ বিষয়ে গতকাল ঘটনাস্থলে গিয়ে সীমা ও তার শ^াশুড়ীর সঙ্গে কথা হয়। সীমা জানায়, এখলাছ কিছুদিন আগে ঢাকায় যাওয়ার পর মোবাইলে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। কয়েকদিন আগে বাড়ি ফিরলে বিয়ের জন্য আসি। মেম্বর সম্পর্কে তার মামা হয় বিধায় বিয়ে দিয়ে দিয়েছে।
এদিকে মেম্বর দাম্ভিকতা প্রকাশ করে বলেন, তাদের দুজনের বয়স পুর্ণ হয়েছে। আমার ওয়ার্ডে কিভাবে বিয়ে হবে তা আমার ব্যাপার।
স্থানীয় সরকারের একজন প্রতিনিধি হয়েও আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গলি দেখানোয় মেম্বরের বিরুদ্ধে ক্ষোভ বিরাজ করছে এলাকায়। বাল্য বিবাহ মুক্ত মেহেরপুর জেলার জেলা প্রশাসন যেখানে বাল্য বিয়ের বিষয়ে কঠোর অবস্থানে সেখানে একজন মেম্বর কিভাবে বাল্য বিয়ে দেয়ার সাহস রাখেন তা ভেবে পাচ্ছেন না কেউ-ই। জোরপুর্বক বাল্য বিয়ে দেয়ার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেছেন ভুক্তভোগী পরিবার ও এলাকার সচেতন মহল।
শুক্রবার রাতে এখলাছ ও নাজমুলের বাল্য বিয়ের খবর পেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে তা বন্ধে নির্দেশ দিয়েছিলেন গাংনী সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস.এম জামাল উদ্দীন আহম্মেদ। কিন্তু নির্দেশনার প্রতি বৃদ্ধাঙ্গলি দেখিয়ে একজন জনপ্রতিনিধি বাল্য বিয়ে দেয়ায় বিষ্ময় প্রকাশ করেছেন তিনি।
মেহেরপুরের মুজিবনগরে বিনা টাকায় টেলিমেডিসিনের সুবিধা পাচ্ছে গ্রামের হত দরিদ্র মানুষ
আল-আমীন মেহেরপুর ঃ মেহেরপুরে মুজিবনগরে টেলিমেডিসিন স্বাস্থ্যসেবা।এর মাধ্যমে বিনামুল্যে বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের সেবা পাচ্ছেন গ্রামের মানুষ।জটিল ও কটিন রোগে চিকিৎসা নিতে আর ছুটতে হচ্ছে না ঢাকা, রাজশাহী,খুলনা।মুল্যবান সময় ও খরচ বাঁচিয়ে হাতের কাছে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সেবায় খুশি মুজিবনগর মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্যে আসা রোগী ও তাদের স্বজনরা।ছয় মাস আগেও জেলার প্রত্যন্ত এলাকায় বাসিন্দাদের জটিল কোনো রোগের চিকিৎসার জন্য ছুটতে হতো রাজশাহী বা ঢাকা।এতে বাড়তি ঝামেলাসহ পোহাতে হতো নান বিড়স্বনা। মে মাস থেকে মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্যে চালু করা হয় টেলিমেডিসিন সেবা।এর ফলে এখন আর জটিল ও কঠিন রোগের চিকিৎসা হাতের নাগালেই। ঢাকা মেডিকেল কলেজসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের চিকিৎসা কেন্দ্রের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসরা সেবা দিচ্ছেন এ টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে।এতে মুখোমুখি বসে কথা বলতে পারেন রোগি ও চিকিৎসক।বিনামুল্যে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সেবা পেয়ে খুশি রোগী ও তার স্বজনরা।গ্রামের মানুষকে চিকিৎসাসেবা দিতে পেরে আনন্দিত চিকিৎসাকরাও মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেকে চিকিৎসা নিতে আসা আবুল কালাম আজাদ নামের কৃষক জানান, আমি এর্লাজি রোগের চিকিৎসার জন্য মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেকে এসেছিলাম এখানকার চিকিৎসরা টেলিমেডিসিনের মাধ্যমে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ করে চিকিৎসা দিয়েছেন।কারণ আমার এ রোগের চিকিৎসা নিতে বাহিরে গেলে অর্থ খরচ সহ সময় নষ্ট হতো মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লে ও
পরিবার পরিকল্পনা কর্মকতা জানান, এ সেবার মাধ্যেমে প্রান্তিক পর্যায়ে দরিদ্র ও অসহায় মানুষ দেশের বিভিন্ন মেডিক্যাল কলেজ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের চিকিৎসার সেবা নিতে পারছেন।
জেলার সদর উপজেলা ও গাংনী উপজেলার হাজার হাজার হত দরিদ্র পরিবার টেলিমেডিসিনের সেবা থেকে বি ত এলাকায় সাধারন মানুষের দাবি খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে টেলিমেডিসিনের সেবা পেতে চাই

আপনার মতামত জানানঃ