ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  খেলাধুলা   »   রোমাঞ্চের অপেক্ষায় শেষ দিনের চট্টগ্রাম টেস্ট

রোমাঞ্চের অপেক্ষায় শেষ দিনের চট্টগ্রাম টেস্ট

October 23, 2016 - 12:22 PM

চট্টগ্রাম থেকে : সাগরিকায় শেষ হাসিটা কে হাসবে? জানার জন্য পঞ্চম দিন পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হচ্ছে। বাংলাদেশের বিপক্ষে জয়রথ অব্যাহত রাখতে ইংল্যান্ডের প্রয়োজন মাত্র ২ উইকেট। আর প্রথমবারের মতো ব্রিটিশ সাম্রাজ্যে হানা দিতে বাংলাদেশের চাই ৩৩ রান।

রোববার চতুর্থ দিন সকালে ইংল্যান্ডকে ২৪০ রানে আটকে দিয়ে বাংলাদেশ ২৮৬ রানের টার্গেট পায়। দিনশেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২৫৩ রান। টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম হাফ সেঞ্চুরি তুলে নিয়ে সাব্বির রহমান ৫৯ ও তাইজুল ইসলাম ১১ রানে অপরাজিত থেকে দিন শেষ করেছেন।

চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ২১৫ রান তাড়া করার রেকর্ড আছে বাংলাদেশের। ২০০৯ সালের জুলাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের গ্রেনাডা টেস্টে ৪ উইকেটে জিতেছিল বাংলাদেশ। আজ ইংলিশ বধে টার্গেট ২৮৬।

লক্ষ্যের পথে এগুতে গিয়ে বাংলাদেশ শুরু থেকেই আগ্রাসী। ২০ ওভারে বাংলাদেশের রান ১ উইকেটে ৮১। এতে বাউন্ডারি এল ৯টি। ইমরুল-তামিম উদ্বোধনী জুটিতে যোগ করলেন ৩৫ রান।

এতে দেশসেরা ওপেনারের সংগ্রহ ৯। ৭ রানে কভারে হাসিব হামিদের বলে জীবন পাওয়ার পরও ইনিংস বড় করতে পারেননি ঘরের ছেলে। মঈন আলীর করা দশম ওভারের পঞ্চম বলে শর্ট লেগে ক্যাচ দেন তামিম। বাড়তি টার্ন ও বাউন্স থাকায় অফস্ট্যাম্পের বাইরের বলটি খেলতেই হত তামিমের। সঙ্গী হারানোর পরও আগ্রাসী মনোভাবে ব্যাটিং করেছেন ইমরুল। ডাউন দ্যা উইকেটে, অফস্ট্যাম্পের বাইরের বল ও সুইপে দারুণ কিছু শট খেলেছেন ইমরুল। কিন্তু বেশি শট খেলার মাশুল গুনেছেন ২১তম ওভারে। আদীল রশিদের বলে সুইপ করতে গিয়ে টপঅ্যাজে উইকেটের পিছনে ক্যাচ দেন ৬১ বলে ৬ বাউন্ডারিতে ৪৩ রান করা ইমরুল। একটু ধৈর্য্য ধরতে পারতেন ইমরুল! এ উইকেটের মধ্য দিয়ে প্রথমবারের মত টেস্ট ক্রিকেটে বাঁহাতি ব্যাটসম্যানের উইকেট পান রশিদ।

টেস্ট স্পেশালিস্ট মুমিনুল প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা কাটিয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে দারুণ ব্যাট চালাতে থাকেন। ২০১৪ সালে এ মাঠেই চতুর্থ ইনিংসে সেঞ্চুরি উপহার দিয়ে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ ড্র করেছিলেন মুমিনুল। আজকের শুরুটা সেরকম কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন। কিন্তু বাঁধা হয়ে দাঁড়ায় ব্যাটি। রিভিউ নিয়ে সাজঘরে ফেরান ৪৭ বলে ৪ বাউন্ডারিতে ২৭ রান করা মুমিনুল হককে।

এরপর হতাশ করেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও সাকিব আল হাসান। দুজন স্কোরবোর্ডে যোগ করেন মাত্র ১৭ ও ২৪ রান। ১৪০ রানে সাকিবের বিদায়ের পর স্টেডিয়াম জুড়ে হতাশা। জয়ের জন্য তখনও যে বাকি ১৪৬ রান। ক্রিজে থাকা মুশফিকুর রহিম তিন অভিষিক্ত ক্রিকেটার ও লেট অর্ডার ব্যাটসম্যানদের নিয়ে স্বপ্ন পূরণ করতে পারবেন কিনা তা নিয়ে ছিল সংশয়!

কিন্তু সংশয় দূর করেন মুশফিকুর রহিম ও সাব্বির রহমান। ২৭ ওভারে দু’জন স্কোরবোর্ডে যোগ করেন ৮৭ রান। নান্দনিক ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি ও ধৈর্য্যর পরীক্ষা দেন দুজন। মধ্যাহ্ন বিরতির এক ঘন্টা পর থেকে ব্যাটিং শুরু করে চা-বিরতির পর আরও দেড় ঘন্টা ব্যাটিং করেন এ দু’জন।%e0%a6%b6%e0%a7%87%e0%a6%b7-%e0%a6%a6%e0%a6%bf%e0%a6%a8%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%b0%e0%a7%8b%e0%a6%ae%e0%a6%be%e0%a6%9e%e0%a7%8d%e0%a6%9a%e0%a7%87%e0%a6%b0-%e0%a6%85%e0%a6%aa%e0%a7%87%e0%a6%95

bd

ক্রিজে এতটাই দেখেশুনে খেলেন যে চা-বিরতির ৫০ বল পর আসে প্রথম বাউন্ডারি। জয়ের পথে এগিয়ে যাওয়ার সব আয়োজনই করতে থাকেন দু’জন। কিন্তু ব্যাটির লাফিয়ে উঠা এক বলে বিপর্যয়| ৩৯ রান করা মুশফিক ব্যাটির করা বলেই ব্যাট নিয়েছিলেন। কিন্তু বল হঠ্যাৎ লাফিয়ে উঠায় মুশফিকের ব্যাটে লেগে বল চলে যায় শর্ট গেলে। গ্যারি ব্যালান্স টাইগার দলপতির ক্যাচ নিতে ভুল করেননি।

এরপর ব্রডের আগুণ ঝরা বোলিং। পুড়ল অভিষিক্ত দুই টাইগার। বল হাতে আলো ছড়ানো মেহেদী হাসান মিরাজ ব্যাটিংয়ে ব্যর্থ দ্বিতীয় ইনিংসেও। স্টুয়ার্ট ব্রডের বলে এলবিডব্লিউ হওয়ার আগে এই তরুণ ৯ বলে করেন ১ রান। প্রথম ইনিংসের মত দ্বিতীয় ইনিংসেও রাব্বী রানের খাতা খুলতে ব্যর্থ। দ্বিতীয় ইনিংসেও খেলেন মাত্র ৩ বল।

রাব্বীর বিদায়ের পর আলোক স্বল্পতার কারণে ৩২ বল খেলার সুযোগ পায় বাংলাদেশ। এ সময়ে ১৫ রান তুলে টাইগাররা। যাতে দশে নামা তাইজুল করেন ১১ রান। সাব্বিরের সংগ্রহ ৪।

এর আগে চতুর্থ দিনের শুরুতে ইংল্যান্ডের ২ উইকেট তুলে নিতে বাংলাদেশের খেলোয়াড়দের মাঠে থাকতে হয় মাত্র ২০ মিনিট। সাকিবের বলে গালিতে ঠেলে দিয়ে চুরি করে সিঙ্গেল বের করতে চেয়েছিলেন ওকস। কিন্তু মিরাজের দূরন্তপণায় অপরপ্রান্তে রান আউট স্টুয়ার্ড ব্রড। কয়েকগজ দৌড়ে এক হাতে বল তুলে দ্রুত মুশফিকুর রহিমের কাছে থ্রো করেন মিরাজ। উইকেট ভাঙার সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেননি মুশফিক। মিনিট পাঁচেক পর গ্যারেথ ব্যাটির উইকেট তুলে নেন স্পিনার তাইজুল। ব্যাটিং প্যাডে আঘাতের পর তাইজুলের আবেদনে সাড়া দেন ধর্মসেনা। ‘বুড়ো’ ব্যাটি রিভিউয়ের আবেদন চেয়েও বাঁচতে পারেননি। ২৪০ রানে থামে ইংল্যান্ডের ইনিংস।

রান তাড়ায় মাত্র ২টি ম্যাচ জিতেছে বাংলাদেশ। একটি ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে ও একটি দেশের মাটিতে। এবার তৃতীয়টির অপেক্ষায় টিম বাংলাদেশ! একটি পরিসংখ্যান বাংলাদেশকে জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী করতেই পারে। প্রতিপক্ষের ২০ উইকেট তুলে নিয়ে এখনও একটি ম্যাচ হারেনি বাংলাদেশ। এর মধ্যে সাতটি জয় আর একটিতে ড্র। চট্টগ্রামে কি অতীত রেকর্ড ধরে রাখতে পারবে মুশফিক এন্ড কোং! সেটা দেখতে যে অপেক্ষায় থাকতে হবে শেষ দিনের।

আপনার মতামত জানানঃ