লালমনিরহাট জেলা পরিষদে সদস্য পদে লড়ছেন স্বামী ও স্ত্রী!

আজিজুল ইসলাম বারী,লালমনিরহাট : প্রতিনিধি:লালমনিরহাট জেলা পরিষদ নির্বাচনে ৮ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্যপদে তায়েজুল ইসলাম ও ৪ নম্বর সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্যপদে ছামসুন নাহার লড়ছেন। তাঁরা সম্পর্কে স্বামী ও স্ত্রী। তায়েজুলের মার্কা টিউবওয়েল ও ছামসুনের হরিণ।এলাকার কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, তায়েজুল কালীগঞ্জের দলগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সাবেক চেয়ারম্যান। ছামসুন আদিতমারীর ‘জাগো নারী প্রগতি সংস্থা’র প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক। তিনি ২০১৫ সালে জেলা পর্যায়ে সমাজ উন্নয়ন ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ জয়িতা ও একই ক্যাটাগরিতে রংপুর বিভাগে দ্বিতীয় স্থান লাভ করেন।ছামসুন বলেন, ‘আমি গত তিন-চার বছর ধরে নির্বাচনের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। তিনি (তায়েজুল) তাঁর নির্বাচনী প্রচারণার পাশাপাশি আমার জন্যও কাজ করে যাচ্ছেন। আমিও তাঁর জন্য ভোটারদের ভোট দিতে বলছি।’ প্রায় একই রকম কথা বলেন তায়েজুল ইসলামও।ওই দুজনের হলফনামা ঘেঁটে দেখা যায়, ছামসুনের শিক্ষাগত যোগ্যতা বিএসএস ও তায়েজুল অষ্টম শ্রেণি পাস। তাঁদের দুজনের নামে একটি করে মামলা আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। তবে তাঁরা দাবি করেন, ষড়যন্ত্র মূলকভাবে তাঁদের ওই মামলার আসািম করা হয়েছে।
তায়েজুল ও ছামসুনের পেশা ব্যবসা। ছামসুনের বাড়ি ভাড়া থেকে বার্ষিক আয় ২৪ হাজার টাকা, ব্যবসা থেকে বার্ষিক আয় ১ লাখ ৪৪ হাজার টাকা, নগদ টাকার পরিমাণ ১ লাখ টাকা। ছামসুনের ১০ ভরি স্বর্ণালংকার ও ডায়মন্ড রিং রয়েছে। তায়েজুলের নামে কৃষিজমি আছে ১ একর ৮ শতক, স্ত্রীর নামে অকৃষি জমি আছে ১১ শতক। ছামসুনের ব্যাংেক ৩ লাখ টাকা ও তায়েজুলের ৭৫ হাজার টাকা ঋণ আছে।নির্বাচনে জেলার ৫টি উপজেলার ৪৫টি ইউনিয়ন, ২টি পৌরসভার মোট ভোটারের সংখ্যা ৬২৫ জন। এ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৩ জন, সাধারণ সদস্যপদে ৫০ জন ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের মহিলা সদস্যপদে ১৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।