ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  Uncategorized   »   সুন্দরবনে শুঁটকি আহরণ মৌসুম শুরু

সুন্দরবনে শুঁটকি আহরণ মৌসুম শুরু

October 15, 2016 - 10:30 AM

বাগেরহাট প্রতিনিধি : বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের দুবলাসহ ১৪টি চরে শুক্রবার থেকে শুঁটকি আহরণ মৌসুম শুরু হয়েছে।

প্রতি বছর অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে মার্চ পর্যন্ত সুন্দরবনের চরে চলে বঙ্গোপসাগর থেকে শুঁটকির জন্য মাছ আহরণ।

গত বছর পূর্ব বনবিভাগ শুঁটকি আহরণ মৌসুমে ৯ হাজার ৮৩৮জন জেলের কাছ থেকে এক কোটি ৭০ লাখ ৮৮৫ টাকা রাজস্ব আদায় করলেও চলতি মৌসুমে রাজস্বের লক্ষ্যমাত্র ধরা হয়েছে দুই কোটি টাকার বেশি।

এ বছর পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ থেকে শুঁটকি আহরণকারী জেলে ও বহদ্দাররা পাস-পারমিট নিয়ে শুক্রবার বিকেলে নৌকায় রওনা দেয় দুবলারচরে শুঁটকি পল্লির উদ্দেশে।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ ও জেলে-বহদ্দার সূত্রে জানা গেছে, সমুদ্রে মৎস্য আহরণ ও শুঁটকি মৌসুমকে ঘিরে এ বছর ১০ থেকে ১৫ হাজার জেলে ও মৎস্য ব্যবসায়ী জড়ো হয়েছে সুন্দরবনের দুবলার চর, মেহেরআলীর চর, আলোরকোল, অফিসকিল্লা, মাঝেরকিল্লা, শেলার চর, নারকেলবাড়িয়া, ছোট আমবাড়িয়া, বড় আমবাড়িয়া, মানিকখালী, কবরখালী, চাপড়াখালীর চর, কোকিলমনি ও হলদাখালী চরে। সুন্দরবন অভ্যন্তরে কমপক্ষে ১৫টি মৎস্য আহরণ, প্রক্রিয়াকরণ ও বাজারজাতকরণ কেন্দ্র নিয়ে এই দুবলা জেলেপল্লিতে জেলেরা নিজেদের থাকা, মাছ ধরার সরঞ্জাম রাখা ও শুঁটকি তৈরির জন্য প্রতিবছর অস্থায়ী ঘর ও মাচা তৈরি করে থাকে।

জেলেরা সমুদ্র মোহনায় বেহুন্দীসহ বিভিন্ন প্রকার জাল দিয়ে মাছ শিকার করে তা বাছাই করে জাত ওয়ারী মাছগুলো শুঁটকি করে থাকে। এ পল্লিতে মূলত জেলেদের মৎস্য আহরণ ও শুঁটকি প্রক্রিয়াকরণের ওপর ভিত্তি করেই সুন্দরবন বিভাগের রাজস্ব আয় হয়ে থাকে।

গত বছর প্রায় সাড়ে ২৬ হাজার কুইন্টাল আহরিত শুঁটকি থেকে এক কোটি ৭০ লাখ ৮৮৫ টাকা রাজস্ব আদায় করে সুন্দরবন বিভাগ।

এ বছর শুঁটকি আহরণের জন্য দুবলারচরে ৮০০ বসতঘর ও ৬০টি ডিপো নির্মাণের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. সাইদুল ইসলাম।

তিনি বলেন, এবার শুঁটকি আহরণের লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে প্রায় দুই কোটি টাকা রাজস্ব আদায় সম্ভব হবে। এ বছর আশা করা হচ্ছে ৩০ হাজার কুইন্টাল শুঁটকি আহরণ করা হবে। শুঁটকি মৌসুমকে ঘিরে জেলেদের নিরাপত্তার জন্য বন বিভাগের পাশাপাশি কোস্টগার্ড, র‌্যাব ও পুলিশের টহল বৃদ্ধি করা হয়েছে।

সুন্দবনে শুঁটকি আহরণ করতে রওনা দেওয়া জেলে-বহদ্দাররা জানান, অন্যান্য বছরের তুলনায় শুঁটকি মৌসুমে জেলে-বহদ্দাররা এবার অনেকটা স্বস্তির মধ্যে আছেন। সুন্দরবনের কয়েকটি বনদস্যু দল স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে র‌্যাবের কাছে আত্মসমর্পণ করায় এবারের শুঁটকি আহরণ মৌসুমে জেলে-বহদ্দাররা নির্বিঘ্নে তাদের কাজ করতে পারবে বলে তারা আশা প্রকাশ করেছেন।

আপনার মতামত জানানঃ