ক্রাইম পেট্রোল বিডি  »  জাতীয়   »   হোসেনি দালানে তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলায় ১৩ জঙ্গি জড়িত ছিল

হোসেনি দালানে তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলায় ১৩ জঙ্গি জড়িত ছিল

October 11, 2016 - 1:35 PM

নিজস্ব প্রতিবেদক : গত বছরের আশুরায় পুরান ঢাকার হোসেনি দালানে তাজিয়া মিছিলে বোমা হামলায় ১৩ জঙ্গি জড়িত ছিল।

এই ১৩ জঙ্গির সবাইকে গ্রেপ্তার করেন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। এর মধ্যে পাঁচজন ঘটনার দায় স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন।

মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া সেন্টারে উপপুলিশ কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘ঘটনার কারণ এবং কারা জড়িত তাদের সবাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়েছে। ধর্মীয় মতাদর্শের কারণে জঙ্গিরা এ হামলা করেছিল বলে তদন্তে জানা গেছে।’

গোয়েন্দা পুলিশ আরো জানায়, এ মামলায় চলতি বছরের ২০ এপ্রিল আদালতে চার্জশিট দেওয়া হয়। সাঈদ ওরফে হিরন ওরফে কামাল, জাহিদ হাসান ওরফে রানা ওরফে মোসায়েব, শাহাদাৎ ওরফে আলবানি ওরফে মাহফুজ ওরফে হোজ্জা, আব্দুল বাকি ওরফে আলাউদ্দিন ওরফে নোমান, আরমান, রুবেল ইসলাম ওরফে সজীব, কবির হোসেন ওরফে রাশেদ ওরফে আশিক, মাসুদ রানা, আহসান উল্লাহ মাহমুদ, আবু সাইদ সোলায়মান ওরফে সালমান, চান মিয়া, ওমর ফারুক ওরফে মানিক ও শাহজালালকে আসামি করা হয়। সংগঠনটির সামরিক শাখার কমান্ডার হোজ্জা হামলার প্রধান পরিকল্পনাকারী। হোজ্জাসহ তিন জঙ্গি পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে মারা গেছেন। অবশ্য আদালত থেকে তিনজনকে বাদ দিয়ে বিচার শুরু হবে। পাঁচজন ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

তদন্ত সংশ্লিষ্ট্ররা জানতে পেরেছেন, মোহাম্মদপুরের বিহারি ক্যাম্পেও শিয়াদের ওপর হামলার পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। মোহাম্মদপুরে বাসা ভাড়া নিয়েছিল তারা। পরে হোসনি দালানে হামলার পরিকল্পনা করে তড়িঘড়ি করে কামাঙ্গীরচরে বাসা ভাড়া নেয়। হোসনি দালানের কবরস্থান থেকে মাহফুজ ওরফে আলবানি পাঁচটি গ্রেনেড ছুড়ে মারেন। তার সঙ্গে রাশেদ ওরফে আশিক হামলায় অংশ নেন। শিয়া সম্প্রদায়ের বড় সমাবেশস্থলে বেশি সংখ্যক মানুষকে হত্যার পরিকল্পনা ছিল জঙ্গিদের। তবে সিসিটিভি ক্যামেরা ও আর্চওয়ে স্থাপনসহ নিরাপত্তার কিছু উদ্যোগের কারণে জঙ্গিরা পরিকল্পনা পুরোপুরি বাস্তবায়ন করতে পারেনি।

গত বছরের ২৩ অক্টোবর মধ্য রাতে হোসনি দালানে বোমা হামলা চালিয়েছিল জামা’আতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) জঙ্গিরা। এতে ঘটনাস্থলে একজন এবং পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরো একজনের মৃত্যু হয়।

আপনার মতামত জানানঃ